যশোর বোর্ডে মানবিক বিভাগে প্রথম সাতক্ষীরার শাকিল

image-114124-1577697536.jpg

নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রবর্তন। প্রকাশিতঃ ১৬:০৯, ৩০ ডিসেম্বর ২০১৯

২০১৯ সালের এইচএসসি পরীক্ষায় যশোর বোর্ডে মানবিক বিভাগে প্রথম হয়েছে সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের ছাত্র শেখ শাকিল হোসেন।

রবিবার (২৯ ডিসেম্বর) যশোর বোর্ডের উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) পরীক্ষা ২০১৯-এর মেধা বৃত্তির তালিকা প্রকাশিত হয়েছে। এই তালিকায় মানবিক বিভাগে শাকিল প্রথম স্থান অর্জন করেছে।

শাকিল হোসেন সাতক্ষীরা সদরের ফিংড়ি ইউনিয়নের শেখ জামায়েত হোসেন ও বিউটি হোসেনের ছেলে। তার শিক্ষার হাতেখড়ি হয় নানা শেখ সোহরাব হোসেনের হাত ধরে। আনুষ্ঠানিক শিক্ষা জীবন শুরু হয় স্থানীয় জোড়দিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। ২০১১ সালে জিপিএ ৫.০০ সহ বৃত্তি পেয়ে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় ইউনিয়নের প্রথম হয় শাকিল।

২০১৪ সালে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষায় (জেএসসি) স্থানীয় গোবরদাড়ি জোড়দিয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে জিপিএ ৫.০০ সহ ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়ে উত্তীর্ণ হয়। একই প্রতিষ্ঠান থেকে ২০১৭ সালে বিজ্ঞান বিভাগে জিপিএ ৫.০০ পেয়ে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পাস করে সে।

মাধ্যমিক পর্যন্ত নিজের গ্রামেই পড়ালেখা করে উচ্চ মাধ্যমিকে সাতক্ষীরা সরকারি কলেজে মানবিক বিভাগে ভর্তি হয় শাকিল।

এসএসসি পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগে সর্বোচ্চ ফলাফল করেও মানবিক বিভাগে ভর্তির কারণ জানতে চাইলে শাকিল বলেন, ‘কাউকে না জানিয়েই বিভাগ পরিবর্তন করেছিলাম শুধুমাত্র নিজের আগ্রহের কারণে। অনেকে আশাহত হয়েছিলেন, অনেকে মন্দ কথা বলেছেন। তবে, কলেজের শিক্ষকমণ্ডলী এবং কিছু সহপাঠীর কারণে কলেজের সময়টা আমার ভালোই কেটেছে। কম মেধাবীরাই মানবিক পড়বে, আমাদের সমাজে এমন ধারণা চালু আছে। এই ধারণা থেকে আমাদের অভিভাবকদের বেরিয়ে আসা উচিত।’

এই সাফল্যের রহস্য জানতে চাইলে শাকিল বলেন, ‘আমি নিজেকে একদমই মেধাবী মনে করি না। আলহামদুলিল্লাহ, আল্লাহ’র অশেষ রহমত এবং আমার মায়ের দোয়া আমার সাথে আছে। আমার শিক্ষকমণ্ডলী এবং বিশেষ কিছু মানুষের অনুপ্রেরণা সবসময় আমাকে উজ্জীবিত করেছে। আমি তাঁদের প্রতি কৃতজ্ঞ।’

কলেজের সময় থেকে শাকিল বিভিন্ন সহপাঠ্যক্রমিক কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত রয়েছে। সে সাতক্ষীরা স্টুডেন্ট সোসাইটির ফাইন্ডিং প্রেসিডেন্ট। বিতর্ক, রচনা, কুইজসহ বহু প্রতিযোগিতায় জেলার সেরা হওয়ার অর্জন আছে তার। ২০১৮ সালে সৃজনশীল মেধা অন্বেষণ প্রতিযোগিতায় সে জেলার ‘সেরা মেধাবী’ স্বীকৃতিপ্রাপ্ত।

শাকিল ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পাবলিক এডমিনিস্ট্রেশন বিভাগে অধ্যয়নরত। নিজের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি একজন ভালো মানুষ হতে চাই। আমার শিক্ষকমণ্ডলীর কাছে আমি চিরঋণী।’

শাকিলের ব্যাপারে সাতক্ষীরা সরকারি কলেজের ইতিহাস বিভাগের প্রভাষক ইদ্রিস আলী বলেন, শাকিল খুবই মেধাবী একটি ছেলে। ও সব সময় শিক্ষকদের সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছে। আমাদের কলেজের সকল শিক্ষকই ওকে চেনে। আর শাকিল পড়ালেখার পাশাপাশি সহপাঠ্যক্রমিক কার্যক্রমের সঙ্গে খুব বেশি যুক্ত থাকত। সে অনেকবার জেলা পর্যায়ের বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে প্রথম স্থান অধিকার করেছে। শাকিলের আরেকটি বড়গুণ হলো ও পড়ালেখার সঙ্গে সঙ্গে চলমান বিশ্বেরও ব্যাপক খোঁজখবর রাখে। সবসময় আপডেট থাকে ও। ভবিষ্যৎ জীবনে সে অনেক ভালো কিছু করবে বলে আমরা মনে করি।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top