স্ত্রীর চুল কেটে খুন্তির ছ্যাঁকা

Noakh-1912241101.jpg

নিজস্ব প্রতিবেদক, প্রবর্তন। প্রকাশিতঃ ১৭:০৫, ২৪ ডিসেম্বর ২০১৯

নোয়াখালীর কবিরহাটে স্ত্রীর মাথার চুল কেটে খুন্তি দিয়ে শরীরে ছ্যাঁকা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে স্বামীর বিরুদ্ধে। এরপর হাসপাতালে ভাড়াটে সন্ত্রাসী দিয়ে তাকে তুলে নেয়ারও চেষ্টা চালানো হয়েছে।

উপজেলার বড় রামদেবপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। সোমবার রাতে ওই গৃহবধূকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

অভিযুক্ত মোশাররফ হোসেন উজ্জ্বল বেগমগঞ্জ উপজেলার শরীফপুর ইউপির খানপুর গ্রামের আব্দুল মতিনের ছেলে।

২০০৯ সালের ৮ অক্টোবর উজ্জ্বলের সঙ্গে উপজেলার বড় রামদেবপুর গ্রামের ইউসুফ আলীর মেয়ে নিলুফার ইয়াসমিন কলির পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। তাদের পাঁচ বছর বয়সী একটি ছেলেও রয়েছে।

ভুক্তভোগী নিলুফার ও স্বজনরা জানান, বিয়ের পর থেকে যৌতুকের জন্য নিলুফারের ওপর নির্যাতন চালাচ্ছিলেন উজ্জ্বল। বিদেশ যাওয়ার জন্য কয়েকবার তাকে টাকাও দেয়া হয়। দুই মাস আগে তিনি সৌদি আরব থেকে ফেরেন। এসেই ফের যৌতুকের জন্য নির্যাতন শুরু করেন।

তারা জানান, বুধবার রাতে জেলা শহরের বছিরার দোকান এলাকায় ভাড়া বাসায় নিলুফারের মাথার চুল কেটে গরম খুন্তিতে সারা শরীর ছ্যাঁকা দেন উজ্জ্বল। একপর্যায়ে ছেলেকে নিয়ে পালিয়ে বাপের বাড়িতে ওঠেন নিলুফার। শুক্রবার তাকে কবিরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে সেখানেও নির্যাতন চালান উজ্জ্বল।

স্বজনরা আরো জানান, সোমবার নিলুফারকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে নেয়ার সময় উজ্জ্বল ফের ভাড়াটে সন্ত্রাসী দিয়ে ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা চালান। তখন স্থানীয়দের তাড়া খেয়ে পালিয়ে যান তারা।

এদিকে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর রাতেই ওই নারীকে দেখতে যান নোয়াখালীর অ্যাডিশনাল এসপি (প্রশাসন ও অপরাধ) দীপক জ্যোতি খীসা ও অ্যাডিশনাল এসপি (সদর সার্কেল) কাজী আব্দুর রহীম। এ সময় তারা ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের দ্রুত আইনের আওতায় আনার আশ্বাস দেন।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: নিরাপত্তা সতর্কতা!!!