পানির সংকটে পানছড়ির মুসল্লিরা

141536panchory.jpg

ডেস্ক রিপোর্ট : পানির সংকটে দুর্ভোগে পড়ছেন মসজিদের মুসল্লিদের। শীতের মৌসুমে কিছু দিন তাদের একমাত্র ভরসা কুয়ার পানি। আর ভরা বর্ষার মৌসুমে বৃষ্টির পানি জমিয়ে তা দিয়ে অজুর কাজ সারতে হয় তাদের। এটিই পানছড়ি উপজেলার ৫নং উল্টাছড়ি ইউপির আলীনগর জামে মসজিদের প্রতিদিনের দৃশ্য।

শুধু তাই নয়, কয়েকদিন পর ময়লা-আবর্জনা থাকা কুয়ার পানিও ফুরিয়ে যাবে। তখন ব্যাটারি চালিত টমটম দিয়ে প্রায় আধা কিলোমিটার দূর থেকে পানি এনে প্রথমে ট্যাঙ্কি ভরা হয়। এরপর অজুর ব্যবস্থা করা হয়। অনেককে বালতি ও কলসি দিয়ে পাহাড়ের তলদেশ থেকে ময়লাযুক্ত পানি এনে ট্যাঙ্কি ভরতে দেখা যায়। পানি সংকট সমাধানে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের পদক্ষেপের অপেক্ষায় আছেন মুসল্লিরা।

অবশ্য বর্ষা মৌসুমে মসজিদের চালের পানি মোটা পাইপ দিয়ে ট্যাংকিতে জমিয়ে রাখার ব্যবস্থা করা হয়। তবে তা শুধুমাত্র বর্ষা মৌসুমেই করা যায়। এভাবেই চরম দুর্ভোগের মধ্যে প্রতিদিন নামাজ আদায় করছেন স্থানীয় মুসল্লিরা। তাই পানির তীব্র সংকটের অনুযোগ করেছেন মুসল্লিরা।

মসজিদে নামাজ পড়তে আসা আজিজুল হক বলেছেন, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল ও ইউপি চেয়ারম্যান বরাবর আবেদন করেও কোনো লাভ হয়নি। এদিকে মসজিদ পরিচালনা কমিটির বর্তমান সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন জানান, আগের কমিটিও পানির সমস্যার সমাধানের জন্য বিভিন্ন দফতরে আবেদন করেছিল। তবে তা ফলপ্রসু হয়নি।

আরও পড়ুন :টেকনাফ থেকে দুই লাখ পিস ইয়াবা জব্দ

মসজিদের ইমাম মো. ইসমাইল হোসেনের সঙ্গে কথা বললে তিনিও পানির সংকট ও মুসল্লিদের দুর্ভোগের কথা জানান। স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. নজরুল ইসলাম বলেছেন, এমন দুর্ভোগের দৃশ্য প্রতিনিয়ত নিজ চোখে দেখতে হয়। এমন দৃশ্য খুবই মানবেতর। তিনিও এমন কষ্টদায়ক পরিস্থিতি থেকে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের রক্ষায় উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের জরুরি পদক্ষেপ গ্রহণের প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন। প্রয়োজনীয় নলকুপ ও রিং ওয়েল বিতরণ করা হলে মুসল্লিদের পানির সংকট হবে না আশা প্রকাশ করেন তিনি।

এদিকে উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের মতো গুরুত্বপূর্ণ একটি প্রতিষ্ঠানে প্রায় পাঁচ বছরের বেশি সময় ধরে অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দিয়ে পরিচালিত হচ্ছে। ফলে দুই উপজেলায় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তারা হিমশিম খাচ্ছেন। আর যথাযথ তদারকির অভাবে উপজেলার অনেক এলাকা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের পানির সমস্যার কোনো সুরাহা হয়নি।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top