সাবেক সেনাপ্রধানের ছেলের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল

download-3-19.jpg

ডেস্ক রিপোর্ট : রাজধানীর মহাখালীতে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল (অব.) আজিজ আহমেদের ছেলে ইশরাক আহমেদ স্বাধীনের অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে। তবে পর্যবেক্ষণের জন্য তাকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয়েছে।

চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে স্বাধীনের শারীরিক অবস্থা আগের তুলনায় অনেক ভালো উল্লেখ করেছেন তার চাচাতো ভাই ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর আসিফ আহমেদ। তিনি গতকাল সন্ধ্যায় বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, স্বাধীন কোমরের নিচে আঘাত পেয়েছেন। সতর্কতা হিসেবে চিকিৎসকরা তাকে আইসিইউতে রেখেছেন।

গত মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) ভোর ৪টা ৫৪ মিনিটে একটি প্রাইভেট কার জাহাঙ্গীর গেট থেকে ইউটার্ন নিয়ে মহাখালী মোড়ের দিকে যাচ্ছিল। এসময় ফ্লাইওভারের সঙ্গে ধাক্কা লেগে প্রাইভেট কারটি ছয়টি ডিগবাজি খায়। ঘটনাস্থলেই মারা যান ফাহমিদ আহমেদ রায়হান (১৯) ও আয়মান (২২)। নিহত আয়মানের বাবা কর্নেল (অব.) ওমর ফারুক। রায়হান বেসামরিক পরিবারের সন্তান। তার বাসা নিকুঞ্জে। রায়হানের বাসা থেকেই সবাই একত্রে বের হন। সবাইকে বাসায় পৌঁছে দিতে গাড়ি নিয়ে বের হয়েছিলেন রায়হান। তিনি চালকের আসনে ছিলেন। ওই ঘটনায় আহত স্বাধীন (১৯) ও মহসিন (২২) ঢাকা সিএমএইচে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

আরও পড়ুন : ছোট্ট এক গ্রাম থেকে ফেসবুকে ঘুরল ছবি-ভিডিও, পাল্টে গেল গল্প

গতকাল বুধবার (২৪ নভেম্বর) সকালে মহসিনকে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে জানিয়ে কাফরুল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান জানান, দুর্ঘটনাকবলিত গাড়িটি উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে। একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। দুর্ঘটনাস্থলে থাকা সিসি ক্যামেরার ফুটেজে দেখা যায়, ডিগবাজির সময় প্রাইভেট কারের ভিতর থেকে দুজন ছিটকে বের হয়ে যান। এর কয়েক সেকেন্ড আগে একই জায়গায় অর্থাৎ রাওয়া ক্লাবের সামনে দিয়ে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা দ্রুত গতিতে চলে যায়। প্রাইভেট কারটির ধাক্কায় আগুনের ফুলকি উড়তে দেখা যায়।

কাউন্সিলর আসিফ বলেন, স্বাধীন খুবই সহজ-সরল একটি ছেলে। সম্প্রতি সে এ-লেভেল সম্পন্ন করেছে। তাকে বন্ধুরাই উসকানি দিয়ে নিয়েছিল। কিছুদিন আগে আমিই ওই বন্ধুদের কাছ থেকে দূরে থাকতে তাকে পরামর্শ দিয়েছিলাম। সে তা শুনেছিলও।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top