বৃহস্পতিবার ফের মিরপুরের সড়কে নামবেন পোশাক শ্রমিকরা

garments-20211124114423-20211124165733-1.jpg

বুধবার সকালে মিরপুর-১০ নম্বর গোল চত্বরে শ্রমিকদের অবস্থান

ডেস্ক রিপোর্ট:  বেতন-ভাতা বাড়ানোর দাবিতে মিরপুরের কয়েকটি সড়কে চলা আন্দোলন আজকের মতো স্থগিত করেছেন পোশাক শ্রমিকরা। বুধবার সকাল ৯টায় শুরু হওয়া আন্দোলন টানা পাঁচ ঘণ্টা চলার পর দুপুর দুইটায় শেষ হয়।

বেলা দুইটায় মিরপুর-১৩ নম্বরের মূল সড়কে সমবেত হয়ে আজকের মতো আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণা দেন শ্রমিকরা। আগামীকাল সকালে আবারও আন্দোলন শুরু হবে এবং দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে বলে জানান তারা।

আরও পড়ুন : সংসদে ১৪৭ বিধির প্রস্তাবে যা বললেন প্রধানমন্ত্রী

এর আগে আজ সকাল ৯টায় মিরপুর-১০ নম্বর গোল চত্বর ও মিরপুর-১৩ নম্বরের বিএমএ গার্মেন্টসের সামনের সড়ক অবরোধ করেন শ্রমিকরা।

গতকাল মঙ্গলবার আন্দোলন চলাকালে মালিকপক্ষের ভাড়াটে সন্ত্রাসীদের হামলায় দুইজন শ্রমিক নিহত হয়েছেন এবং তিনজন আহত হয়েছেন বলে দাবি করেছেন আন্দোলনকারীরা। আহত তিন শ্রমিককে মিরপুরের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে বলে জানান সহকর্মীরা।

বিএমএ গার্মেন্টসের আন্দোলনকারী শ্রমিক সাদিয়া সকালে বলেন, বাড়ি ভাড়া, খাবার খরচসহ সব পণ্যের দাম বাড়তি। অথচ আমাদের বেতন ও সুবিধাদি বাড়ানো হয়নি। তাই বেতনভাতা বাড়ানোর দাবিতে তিনদিন আগে থেকে আমরা শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন শুরু করেছি। আমাদের দাবি, বেতন বাড়ানোর পাশাপাশি শ্রমিকদের ওপর হামলার দায়ে মালিককে বিচারের আওতায় আনতে হবে।

আন্দোলনে নেতৃত্ব দেওয়া আব্দুর রহমান নামে এক শ্রমিক বলেন, হামলা চালিয়ে যেসব শ্রমিককে মেরে ফেলা হয়েছে এবং যারা আহত হয়েছেন তাদের ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। হামলাকারীদের সঠিক বিচার করতে হবে। একইসঙ্গে আমাদের বেতন ও হাজিরা বোনাস বৃদ্ধি, সবাইকে ঈদ বোনাসের আওতাভুক্ত করা এবং বাৎসরিক ছুটির অর্থ প্রদান করতে হবে।

আরও পড়ুন : রয়্যাল রিসোর্টেও ধর্ষণ করেন মামুনুল : আদালতে ঝর্ণা

সকালে আন্দোলন শুরু হলে অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি এড়াতে ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয় জানিয়ে মিরপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, শ্রমিকদের শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ করার আহ্বান জানানো হয়েছিল। আজ আন্দোলনে কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেনি।

তবে আন্দোলনের কারণে মিরপুরে যানবাহন চলাচল ব্যাহত হয়েছে এবং সাধারণ মানুষ দুর্ভোগে পড়েছেন বলে জানিয়েছেন পুলিশের এই কর্মকর্তা।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top