সবজির চড়া দামে হতাশ ক্রেতারা

download-7-9.jpg

ডেস্ক রিপোর্ট :  বেশ কিছুদিন ধরে সবজির বাজারে ঊর্ধ্বগতি। প্রায় সব সবজি আগের তুলনায় অতিরিক্ত দামে বিক্রি হচ্ছে। এ নিয়ে হতাশ নিম্ন ও মধ্যবিত্ত শ্রেণির ক্রেতারা। বিক্রেতারা বলছেন, সবজির দামের ঊর্ধ্বগতি আরও কিছুদিন থাকবে।

অন্যদিকে বাজারে আসা ক্রেতারা বলছেন, ৫০ টাকার নিচে বাজারে কোনো সবজি নেই। এত দাম হলে আমরা সবজিও কিনতে পারব না। গত কয়েকদিনের মতো বৃহস্পতিবার (১৪ অক্টোবর) রাজধানীর বিভিন্ন কাঁচা বাজার ঘুরে অতিরিক্ত দামে সব ধরনের সবজি বিক্রি হতে দেখা গেছে।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ টাকা কেজিতে। বরবটি ৭০ থেকে ৮০ টাকা, করলা ৬০ থেকে ৭০ টাকা, টমেটো ১৪০ থেকে ১৬০ টাকা, মূলা ৬০ থেকে ৭০ টাকা, ঝিঙা ৬০ টাকা, শসা ৬০ থেকে ৭০ টাকা, গাজর ১৩০ থেকে ১৫০ টাকা প্রতি কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

অন্যদিকে সিম প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকায়, ঢেঁড়স ৫০ থেকে ৬০ টাকা, পটল ৫০ থেকে ৬০ টাকা, কাঁচা মরিচ ১৬০ থেকে ১৮০ টাকা, ফুলকপি ছোট সাইজের প্রতি পিস ৫০ টাকা এবং বাঁধা কপি প্রতি পিস ৬০ টাকা এবং কাঁচা কলা প্রতি হালি ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

রাজধানীর রামপুরা বাজারে নিয়মিত বাজার করতে আসেন বেসরকারি চাকরিজীবী আনোয়ার হোসেন। তিনি বলেন, আজ কয়েকদিন ধরে বাজারে সবজির দাম অতিরিক্ত। বাজার মনিটরিংয়ের কোনো উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না সংশ্লিষ্টদের। প্রতিটি সবজি অতিরিক্ত দামে বিক্রি হচ্ছে। এমন দামে আমাদের মতো সাধারণ ক্রেতারা খুবই হতাশ। বেশি দামের কারণে কোনো সবজি আধা কেজি, কোনোটা আড়াইশ গ্রাম করে কিনতে বাধ্য হচ্ছি। বাজারে ৫০ টাকার নিচে কোনো সবজিই পাওয়া যাচ্ছে না।

বাড্ডার কাঁচা বাজারে সবজিসহ অন্য পণ্য কিনতে এসে নিজের হতাশার কথা জানালেন আরেক চাকরিজীবী মকিদুর রহমান। তিনি বলেন, ছোট একটি চাকরি করে  সংসার চালাতে হয়। অল্প বেতনের মধ্যে সংসারের সব খরচ মেটাতে হয়। এর মধ্যে বাজারে আগুন লেগেছে। কোনো কিছুর দামই আমাদের নাগালের মধ্যে নেই। মাছ মাংস না খেয়ে শুধু সবজি কিনে খাব, তারও কোনো উপায় নেই এখন। কিছুদিন ধরে সবজির বাজারে দামের ঊর্ধ্বগতি চলছে। এমন অতিরিক্ত দাম হলে আমরা খাব কি?

গুলশান সংলগ্ন কাঁচা বাজারের সবজি বিক্রেতা এনামুল হকের কাছে সবজির দামের ঊর্ধ্বগতির কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, সব ধরনের সবজির আমদানি বর্তমানে কম, কিছুদিন আগের বন্যায় কৃষকের ফসলের ক্ষতি হয়েছে। এখন খেত থেকে শেষ সময়ের ফসল উঠছে, তাই বাজারে সবজি জাতীয় পণ্যের আমদানি কম হচ্ছে। যে কারণে দাম বেশি।

তিনি আরও বলেন, পাইকারি বাজার থেকে আমরা এক মণ সবজি কিনলে সেখানে টিকে ৩০ কেজি। বাকিগুলো নষ্ট হয়, পচা থাকে। এছাড়া বাজার থেকে গাড়িতে করে আনার খরচও আছে। সব মিলিয়ে কিছুদিন ধরে সব সবজির দাম বেশি যাচ্ছে। শীতের নতুন সবজি আসার আগ পর্যন্ত দাম কিছুটা বাড়তি থাকতে পারে।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top