চোখের বদলে চোখ উপড়ে ফেলার রায় দিল ইরানের আদালত

151642thumbs_b_c_7ae4748a3616a6b806653358ba3bd99f-800x451-1.jpg

ডেস্ক রিপোর্ট : ইরানে জনৈক ব্যক্তিকে শাস্তি হিসেবে চোখ তুলে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে তেহরানের আদালত। আরেকজনের চোখ অন্ধ করে দেওয়ার অপরাধে চোখের বিনিময়ে চোখ ইসলামিক নীতির আওতায়  এই শাস্তি ঘোষণা করা হয়েছে। স্থানীয় অনলাইন পোর্টাল ইরান ওয়্যার এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

ইরানের ইসলামি নীতি কিসাস অনুসারে ৪৫ বছর ওই ব্যক্তির এই শাস্তি ঘোষণা করা হয়েছে।  এই আইন অনুসারে দোষী সাব্যস্ত ব্যক্তিদের একইভাবে প্রতিশোধ নেওয়া হয়।

স্থানীয় গণমাধ্যমের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী প্রতিবেশীর সাথে ওই ব্যক্তির তুমুল বাক বিতন্ডা ও এক পর্যায়ে হাতাহতি হয়। এর ফলে এক চোখ হারান তার ওই প্রতিবেশী।

চোখের বিনিময়ে চোখ তুলে নেওয়ার প্রথা ইরানে আগে চালু থাকলেও এখন তা অনেক কম দেখা যায়। ২০১৬ সালে একজন ব্যক্তির দু চোখ অন্ধ হয়ে যায় তার চার বছর বয়সী ভাতিজি চোখে চুন ছুড়ে মারা কারণে। এরপরে ওই ছোট বাচ্চারও চোখ তুলে নেওয়া হয়।

ইসলামি শরীয়াহ আইন অনুযায়ী ইরানের আইন পরিচালিত হয়। ইরানের এই ন্যাক্কারজনক কর্মকাণ্ডের জন্য একাধিকবার মানবধিকার সাহায্য সংস্থার  সমালোচনার শিকার হয়েছে দেশটির আইন। গেলো ফেব্রুয়ারীতে মানসিকভাবে অসুস্থ হাদী বোস্তামির শাস্তি বাতিলের আবেদন জানায় সংস্থাটি।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top