পুলিশ সদস‌্যের স্ত্রী হত্যা: ৪ আসামি গ্রেপ্তার

555-2109150744.jpg

ডেস্ক রিপোর্ট : মানিকগঞ্জে পুলিশ সদস‌্যের স্ত্রী বিলকিস আক্তার হত্যা মামলায় ৪ জনকে গ্রেপ্তার ও চুরি হওয়া মালামাল জব্দ করা হয়েছে।

বুধবার ( ১৫ সেপ্টেম্বর) বেলা ১২টার দিকে মানিকগঞ্জ পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ গোলাম আজাদ খাঁন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

গ্রেপ্তাররা হলেন— রাজবাড়ীর মো. কবির হোসেন (৩০), মো. রিয়াজ উদ্দিন সরদার রিয়াজ (২৬), বগুড়ার শাকিল হাসান (১৯) ও  রংপুরের আঁখি মনি লিপি আক্তার।

এসময় তাদের কাছ থেকে ৩টি মোবাইল ফোন, একটি রূপার নুপুর,একটি স্বর্ণের পায়েল, ৩টি স্বর্ণের কানের রিং,একটি স্বর্ণের ব্রেসলেট,একটি স্বর্ণের লকেট ও ২টি স্বর্ণের কানের দুল এবং নগদ ৫ হাজার টাকা জব্দ করা হয়েছে।

পুলিশ সুপার সংবাদ সম্মেলনে জানান, পূর্ব পরিচিত হওয়ায় গত ১০ সেপ্টেম্বর রাতে মানিকগঞ্জ পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের রির্জাভ ট্যাংক এলাকার বাসাভাড়ায় আসামি মো. কবির হোসেন, মো. রিয়াজ উদ্দিন সরদার, শাকিল হাসান ও আখিঁ মনি লিপি বেড়াতে আসেন। এরপর সঙ্গে নিয়ে আসা ঘুমের ওষুধ মেশানো কোমল পানীয় ও জুস বিলকিস ও তার ছেলে-মেয়েকে খাওয়ান। এরপরে তারা অচেতন হয়ে পড়লে পাশের রুমে ছেলে ও মেয়েকে রেখে আসেন এবং আসামি রিয়াজ উদ্দিন বিলকিসকে ধর্ষণ করেন। এরপর আসামি বিলকিসের হাত,পা ও মুখ বেঁধে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে এবং মোবাইল ফোন, স্বর্ণালংকার এবং নগদ অর্থ নিয়ে ওই রাতে পালিয়ে যান। পরের দিন শনিবার সকালে পুলিশ সদস‌্য মাসুদ রানার স্ত্রী বিলকিস আক্তারের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।  এঘটনায় দিন নিহতের বাবা মজেম আলী বাদী হয়ে সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ সুপার আরও জানান, ঘটনার পর থেকে পুলিশ কাজ শুরু করে এবং সর্বপ্রথম আঁখি আক্তার লিপিকে গ্রেপ্তার করে। তার দেওয়া তথ্য অনুসারে ও তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে অন‌্য আসামিদের দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) জামিনুর রহমান জানান, আজ দুপুরে মানিকগঞ্জ চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আসামিদের নিয়ে যাওয়া হবে এবং আদালতের কাছে ৫ দিনের রিমান্ড দাওয়া হবে। তবে প্রাথমিকভাবে হত্যা ও চুরির ঘটনার কথা স্বীকার করেছেন আসামিরা।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

scroll to top