মোল্লাহাটে পটল চাষে স্বাবলম্বী হচ্ছেন কৃষকরা

1631080516627-1.jpg

শেখ শাহিনুর ইসলাম শাহিন, মোল্লাহাট প্রতিনিধিঃ বাগেরহাটের মোল্লাহাটে পতিত জমিতে কাজলা জাতের পটল চাষ করে উপজেলার উদয়পুর ইউনিয়নের গাড়ফা গ্রামের কৃষক আবুতাহের এখন স্বাবলম্বী।

এক সময় তার ছিল অভাব-অনটনের সংসার। অভাব নিত্যই তাড়া করে বেড়াচ্ছিল তাকে। বর্তমানে পটল চাষ করে তার সংসারে স্বচ্ছলতা ফিরে এসেছে। পতিত পড়ে থাকা ৫০ শতক জমিতে পটল চাষ করে তিনি ভাগ্য বদলে ফেলেছেন।

উপজেলা কৃষি অফিস থেকে পটল চাষের উপর প্রশিক্ষণ, সার, ফেরোমান ফাঁদ ও আর্থিক সহায়তা পেয়েছেন তিনি।

পটল চাষী মোঃ আবুতাহের বলেন, ৫০ শতক জমিতে পটল চাষে শ্রেণিভেদে ২০-২৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে তার। এ পর্যন্ত তিনি ৭০ হাজার টাকার পটল বিক্রি করেছেন। তার ক্ষেত থেকে সপ্তাহে দুইদিন প্রায় ৪ মণ পটল তোলা হয়। পাইকারি ব্যবসায়ীরা মাঠ থেকেই পটল নিয়ে যান।

তিনি জানান, তার ক্ষেত থেকে পটল উত্তোলন করা যাবে পুরো মাসজুড়েই। অন্যান্য ফসল থেকে পটলে বেশি লাভ হওয়ায় আগামীতে আরও বেশি জমিতে পটলের আবাদ করবেন।

একই গ্রামের পটল চাষি অশিম মজুমদার বলেন, এক সময় তার সংসারে অভাব-অনটন লেগেই থাকতো। কিন্তু পটল চাষে তার সে অভাব কেটে গেছে। এবার ৪০ জমিতে পটল চাষ করেছেন তিনি। আগামীতে আরো জমির পরিমার বাড়াবো।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য মতে চলতি বছরে মোল্লাহাটে ১২ হেক্টর জমিতে পটলের আবাদ হয়েছে। উপজেলায় প্রায় ২ শত কৃষক পটল চাষের সাথে জড়িত। ফলন ও ভাল লাভ হওয়ায় এই উপজেলার কৃষকেরা পটল চাষে আগ্রহী হচ্ছেন।

উপ-সহকারী কৃষি অফিসার অজয় মল্লিক বলেন, পটলের জমিতে সাধারণত: হেলেঞ্চা, দূর্বা, দন্ডকলস এসব আগাছার উপদ্রব দেখা যায়। এসব আগাছা জমি থেকে খাদ্যগ্রহণ করে পটল গাছকে দুর্বল করে দেয়। ফলে পটলের ফলন কমে যায়। তাই পটলের জমি সবসময় আগাছামুক্ত রাখার পরামর্শ দেন তিনি।

অজয় মল্লিক আরো বলেন, আধুনিক কৃষি পদ্ধতি প্রয়োগ করে কৃষক মোঃ আবুতাহের কাজলা জাতের পটল চাষ করে স্বাবলম্বী হয়েছেন।

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ অনিমেষ বালা বলেন, পটল জনপ্রিয় সবজি। সারা বছর ধরেই কম-বেশি পাওয়া যায়। চলতি মৌসুমে মোল্লাহাট উপজেলায় বেশ কয়েকজন চাষি পটল চাষ করে বেশ সাফল্য পেয়েছেন। পটল চাষের উপর কৃষকদের প্রশিক্ষণ, সার, ফরোমন ফাঁদ ও আর্থিক সহায়তাসহ বিভিন্ন ধরনের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে কৃষকদের।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

scroll to top