শিক্ষার্থীরা মানলেও মানছেন না অভিভাবকরা

mymon-2109130445.jpg

ডেস্ক রিপোর্ট : দীর্ঘ ১৮ মাস পর ক্লাসে ফিরে উচ্ছ্বাসিত শিক্ষার্থীরা, তবে রয়েই গেছে সংক্রমণের আতঙ্ক। কারণ, শিক্ষার্থীরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্কুলে আসলেও অনেক অভিভাবকদের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মানতে দেখা যায়নি।

নগরীর বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় স্কুলের গেইটের সামনে অভিভাবকদের উপচে পড়া ভিড়।  সন্তানদের মাস্ক পড়িয়ে স্কুলে নিয়ে আসলেও অনেকেই নিজেরা মাস্ক পড়েননি। স্কুল কর্তৃপক্ষ বারবার মাইকিং করে বললেও অভিভাবকদের মধ্যে তেমন সচেতনতা দেখা যায়নি।

এদিকে দেড় বছর পর ছাত্র-শিক্ষকরা এক সঙ্গে হওয়ায় প্রাণ ফিরে পেয়েছে ক্যাম্পাস প্রাঙ্গণ।  প্রথম দিনে স্বাস্থ্যবিধিতে সবাই ছিল সচেতন। প্রত্যেক শিক্ষক-শিক্ষার্থীর মুখে ছিল মাস্ক। স্কুলের ভেতরে প্রবেশ করেই ছিল হাত ধোয়ার ব্যবস্থা। থার্মোমিটার দিয়ে শিক্ষকরা নিজেরাই শিক্ষার্থীদের শরীরের তাপমাত্রা মেপেছেন।

জিলা স্কুলের শিক্ষার্থী ফাহাদ নূর বলেন, স্কুলে ঢুকতেই স্যারেরা তাপমাত্রা মেপেছে। পরে সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে ক্লাসে তিনফুট দুরুত্বে বসেছি। সবকিছুই নতুন মনে হচ্ছে। বাসায় বসে পড়াশোনা না হলেও এখন মনে হচ্ছে পড়ায় মন বসবে।

অভিভাবক সিতা রানী পাল বলেন, অনেক পর মেয়েকে নিয়ে স্কুল আসতে পেরে ভালো লাগছে। ছেলে-মেয়েদেরও ভালো সময় কাটবে। সবকিছু খোলা থাকলেও শুধু স্কুলটাই বন্ধ ছিল। আমরা আত্মবিশ্বাসী ছেলে-মেয়েদের কিছু হবে না। ওরা সবসময় স্বাস্থ্যবিধি মেনেই চলে।

বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাসিমা আক্তার বলেন, এই প্রতিষ্ঠানে ২ হাজার ২০০ শিক্ষার্থী রয়েছে। তাদের স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে হাত ধোয়া, মাস্ক, হ্যান্ডসেনিটাইজারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ে ঢোকার সময় তাদের তাপমাত্রা মাপা হচ্ছে। সরকারের সমস্ত নির্দেশনা মেনে বিদ্যালয় পরিচালনা করছি। অভিভাবকদেরও সচেতন হতে অনুরোধ করছি।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

scroll to top