জামিন নিতে গিয়ে কারাগারে রাউকের বরখাস্ত কর্মচারী

karager-20210913214738-1.jpg

রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাউক) বরখাস্ত হওয়া উচ্চমান সহকারী মোস্তাক আহম্মেদ। ২০১৭ সালে প্লট বরাদ্দের কেলেংকারির অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) তার নামে একটি মামলা করে। এতে দুই বছরের সাজাও হয় তার। কিন্তু দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর আদালতে জামিন নিতে গিয়ে পেলেন কারাভোগের আদেশ।

সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরের দিকে রাজশাহী দুদকের আইনজীবী শহিদুল হক খোকন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, রাউকের আটটি বাণিজ্যিক প্লট কেলেংকারির মামলায় চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে দুদক। যার আসামি মোস্তাক আহম্মেদ। অবৈধ সম্পদের হিসাব না দেওয়ায় ২০১৭ সালে মোস্তাকের বিরুদ্ধে দুদক আইনের ২৬ (২) ধারায় একটি মামলা হয়। এই মামলায় ২০১৯ সালের ৩০ নভেম্বর মোস্তাক আহম্মেদের দুই বছরের সাজা হয়। এরপর থেকে মোস্তাক পলাতক ছিলেন।

শহিদুল হক খোকন আরও বলেন, রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) রাজশাহী মহানগর দায়রা জজ ও সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতে জামিন নিতে হাজির হয়েছিলেন তিনি। রাজশাহী মহানগর দায়রা জজ ও সিনিয়র স্পেশাল জজ মো. ইলিয়াস হোসেন জামিন নামঞ্জুর করে মোস্তাক আহম্মেদকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন বলে জানান দুদকের আইনজীবী শহিদুল ইসলাম।

এর আগে, ২০১৫ সালে দুর্নীতির অভিযোগে মোস্তাক আহম্মেদকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করে রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাউক)।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

scroll to top