কানাডায় নির্বাচন: অঙ্গীকার আর প্রতিশ্রুতির ফুলঝুড়ি নেতাদের

image-462107-1630907799.webp

ডেস্ক রিপোর্ট: আগামী ২০ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে কানাডার ৪৪তম জাতীয় নির্বাচন। এ কারণে বিভিন্ন দলের নেতাদের মুখে এবার অঙ্গীকার আর প্রতিশ্রুতির ফুলঝুড়ি।

ইতোমধ্যে বিভিন্ন দল জোর নির্বাচনী প্রচারণায় তাদের সমর্থন নিতে কথা বলছেন নতুন নতুন ইস্যুতে। এর মধ্যে অন্যতম জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যু।

জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে গত জুলাইয়ে জাতিসংঘে নতুন অঙ্গীকার করেছে ট্রুডোর সরকার। ২০৩০ সালের মধ্যে তারা গ্রিন হাউস গ্যাস নিঃসরণ ২০০৫ তুলনায় ৪০ থেকে ৪৫ শতাংশ কমিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

তবে কনজার্ভেটিভ নেতা এরিন ও’টুল ২০৩০ সাল নাগাদ গ্রিন হাউস গ্যাস নিঃসরণ ২০০৫ সালের তুলনায় ৩০ শতাংশ কমানোর কথা জানিয়েছেন ।

অন্যদিকে এনডিপি নেতা জাগমিত সিং জলবায়ু ইস্যুতে লিবারেলদের সাম্প্রতিক ঘোষণাকে ফাঁকা প্রতিশ্রুতি বলে উল্লেখ করেছেন।

তিনি বলেন, জি৭ দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি গ্রিন হাউস গ্যাস নিঃসরণ করে কানাডা। কাজ না করলে জলবায়ু ইস্যুতে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণের কোনো অর্থ নেই।

এদিকে তেল-গ্যাস উৎপাদকদের নিঃসরণ নিয়ন্ত্রণের ট্রুডোর অঙ্গীকারকে স্বাগত জানিয়েছে পরিবেশ ও জলবায়ুবিষয়ক বিভিন্ন সংগঠন।

লিবারেল নেতা জাস্টিন ট্রুডো জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুতে রোববার প্রথমবারের মতো বড় কোনো প্রতিশ্রুতি দিলেন। ট্রুডো বলেন, নির্বাচিত হলে লিবারেল সরকার তেল ও গ্যাস উৎপাদন থেকে পাঁচ বছরে নিঃসরণের লক্ষ্য নির্ধারণ করবেন।

এর চূড়ান্ত লক্ষ্য ২০৫০ সাল নাগাদ এ নিঃসরণ শূন্যে নামিয়ে আনা। একই সঙ্গে আলবার্টা, সাস্কেচুয়ান, নিউফাউন্ডল্যান্ড ও ল্যাব্রাডরের তেল ও গ্যাসের ওপর নির্ভরশীল কমিউনিটির মদ্যে কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে ২০০ কোটি ডলারের তহবিল গঠনের কথাও বলেছেন তিনি।

এ ছাড়া লিবারেল সরকার ইলেক্ট্রিক ভেহিকলের বাধ্যবাধকতার বিষয়েও প্রতিশ্রুতির কথা শুনিয়েছে। সে অনুযায়ী, ২০৩০ সাল নাগাদ কানাডায় বিক্রীত ব্যক্তিগত গাড়ির অর্ধেক হতে হবে কার্বন নিঃসরণমুক্ত।

২০৩৫ সালে মোট গাড়ির শতভাগই কার্বন নিঃসরণমুক্ত করার লক্ষ্য ধরা হয়েছে। পাশাপাশি দেশব্যাপী আরও ৫০ হাজার চার্জিং স্টেশন নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে লিবারেল পার্টি। এর মধ্যে ১৭ হাজার স্টেশন নির্মাণের কাজ এরই মধ্যে সম্পন্ন হয়েছে।

প্রবাসী সাংবাদিক শওগাত আলী সাগর বলেন, এবারের নির্বাচনে সবকটি রাজনৈতিক দলই পরিবেশ, জলবায়ু পরিবর্তনকে গুরুত্ব দিচ্ছে।

বিশিষ্ট কলামিস্ট, উন্নয়ন গবেষক ও সমাজতাত্ত্বিক বিশ্লেষক মাহমুদ হাসান বলেন, জনমুখী কল্যাণমূলক সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে একটি শক্তিশালী গণতান্ত্রিক সরকারের কোনো বিকল্প নেই।

কোয়ালিশন সরকার সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে যে জটিলতার মুখোমুখি হয় তা অবসানে, জাস্টিন ট্রুডোর সরকার একটি শক্তিশালী সরকারের প্রত্যাশায় যে আগাম নির্বাচনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাকে আমি স্বাগত জানাই।

উল্লেখ্য, কানাডার ৪৪তম জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল ২০২৩ সালে। গত মাসে লিবারেল পার্টির নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো গভর্নর জেনারেল মেরি সাইমনকে সংসদ ভেঙে দেওয়ার অনুরোধ করেন।

নির্ধারিত সময়ের দুবছর আগে এই নির্বাচনের প্রশ্নে ক্ষমতাসীন দলের যুক্তি হচ্ছে, তারা সংসদে সংখ্যালঘু সরকার এবং সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠতার অভাবে প্রয়োজনীয় অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে তাদের সমস্যা হচ্ছে। সংসদে তাদের নীতি-কর্মসূচি বাস্তবায়নে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা দরকার।

অন্যদিকে কানাডায় যে কয়েকবার কোয়ালিশন সরকার গঠিত হয়েছে, সেগুলোর গড় সময়সীমা ছিল ১৮ থেকে ২০ মাস।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

scroll to top