যশোর পাসপোর্ট অফিস: ৬ মাসে ১০ কোটি ৬০ লক্ষাধিক টাকা রাজস্ব আদায়

Screenshot_2019-07-26-যশোর-আঞ্চলিক-পাসপোর্ট-Google-Search.png

যশোর অফিস, Prabartan | প্রকাশিতঃ ২০:৪৩, ২৬ জুলাই ২০১৯

দালালদের দৌরাত্ম কমে যাওয়ায় যশোর আঞ্চলিক পাসপোর্ট কার্যালয়ে পাসপোর্ট সেবার মান বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে চলতি বছরের গত ছয় মাসে ৩০ হাজার ৬শ’ ৬৭জন পাসপোর্ট প্রত্যাশীদের সেবা দিয়ে সরকার ১০ কোটি ৬০ লাখ ১২ হাজার ৩শ’ ২৪ টাকা রাজস্ব আদায় করতে সক্ষম হয়েছে। সেবার মান অরো বৃদ্ধি করতে নানা মূখী পদক্ষেপ গ্রহন করেছেন বর্তমানে কর্মরত সহকারী পরিচালক সালাহ উদ্দিন। পাসপোর্ট সেবা গ্রহনকারীদের কথা ভেবে প্রতিদিন সকাল থেকে বিকেল ৫ টায় পর্যন্ত হেল্প ডেক্স চালু রাখা হয়েছে। যা তিনি সিসি টিভি ও সরাসরি তদারকি করেন। এছাড়া,পাসপোর্ট প্রত্যাশী নারীদের কথা চিন্তা করে দোতলায় নারীদের নামাজের ব্যবস্থা গ্রহন করেছেন। নামাজের পাশাপাশি যে সব নারীরা তাদের শিশু সন্তানদের দুগ্ধ পান করাতে ইতিপূর্বে নানা ঝামেলা পোহাতে হয়েছেন তাদের এখন থেকে সেই সমস্যায় পড়তে হবেনা। তার জন্য নামাজের ঘরে দুগ্ধ শিশুদের তাদের মাতা দুগ্ধ পান করাতে পারেন তার জন্য তিনি নানা প্রতিকুলতার মধ্যেও ব্যবস্থা করেছেন। তাছাড়া,তিনি পাসপোর্ট প্রত্যাশী কোন নারী ও পুরুষ কোন ঝামেলার মধ্যে না পড়েন তার জন্য সর্বক্ষনিক সিসি টিভির মাধ্যমে গোটা কার্যালয়ের যেখানে জনগনের সেবার ব্যবস্থা রয়েছে সেই কক্ষগুলির প্রতি তিনি চোখ রাখেন।

কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে,গত ৬ মাসে যে রাজস্ব আদায় হয়েছে তার মধ্যে জানুয়ারী মাসে রাজস্ব আদায়ে র্শীষে ছিল। জানুয়ারী মাসে ৬ হাজার ৯শ’ ২১টি আবেদন থেকে ২ কোটি ২৫লাখ ১১ হাজার ৪শ’ টাকা রাজস্ব আদায় হয়েছে। ফেব্রুয়ারী মাসে ৫ হাজার ৬শ’ ৮৬টি আবেদন থেকে ১ কোটি ৮৬ লাখ ৪৬ হাজার ১শ’ টাকা রাজস্ব, মার্চ মাসে ৫ হাজার ৩শ’ ১১টি আবেদন থেকে ১ কোটি ৮৩ লাখ ৯ হাজার টাকা রাজস্ব,এপ্রিল মাসে ৫ হাজার ১৯টি আবেদন থেকে ১ কোটি ৮০লাখ ৬৭ হাজার ৩শ’ ১৯টাকা রাজস্ব,মে মাসে ৩ হাজার ৭শ’ ৬৭টি আবেদন থেকে ১ কোটি ৩৮লাখ ৫৫ হাজার ৭৫ টাকার রাজস্ব ও জুন মাসে ৩ হাজার ৯শ’ ৬৩টি আবেদন থেকে ১ কোটি ৪৬লাখ ২৩ হাজার ৪শ’ ৩০ টাকা রাজস্ব আদায় করতে সক্ষম হয়েছে।

যশোর আঞ্চলিক পাসপোর্ট কার্যালয়ে এখন আর আগের মতো দালালদের দৌরাত্ম্য দেখা যায়না। কারণ ইতিপূর্বে যশোর জেলা আঞ্চলিক পাসপোর্ট কার্যালয়ে আশপাশের জেলা মাগুরা,ঝিনাইদহ,
নড়াইল জেলার নাগরিকগন পাসপোর্ট করতে এই কার্যালয়ে আসতে হতো। এখন প্রতিটি জেলায় পাসপোর্ট কার্যালয়ের ভবন হওয়ায় এখন আগের মতো জনগনের চাপ অনেকটা হ্রাস পেয়েছে। যার ফলে শুধু মাত্র যশোর জেলার বাসিন্দাগন এই আঞ্চলিক পাসপোর্ট কার্যালয়ের সেবা গ্রহনের সুযোগ পান।

কার্যালয়ে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে,এই কার্যালয়ে বর্তমানে প্রতিদিন প্রায় দুই শতাধিক আবেদন জমা পড়েন। যা আগের চেয়ে অনেকটা কম। আগামী মাসের মধ্যে ই পাসপোর্ট চালু করতে যাচ্ছে সরকার। ই পাসপোর্ট কার্যক্রম চালু হলে বর্তমানে যে পাসপোর্টগুলি রয়েছে পর্যায়ক্রমে সেগুলি আস্তে আস্তে বিলুপ্তি হবে। ই পাসপোর্ট আন্তজার্তিক অর্থাৎ বর্হিবিশে^র কাছে গ্রহনযোগ্য একটি পাসপোর্ট। যে পাসপোর্টের মাধ্যমে পাসপোর্ট বহনকারীর সব কিছু সার্ভার থেকে তৎক্ষনিক দেখা যাবে। অত্যাধুনিক মানের পাসপোর্ট অর্থাৎ ই পাসপোর্ট চালু করার সকল প্রস্তুতি প্রায় সম্পনন বলে সূত্রগুলো জানিয়েছেন। ই পাসপোর্ট হাতে পেতে পাসপোর্ট প্রত্যাশীদের দিন গুনা ছাড়া আর কি করার আছে।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: নিরাপত্তা সতর্কতা!!!