যুক্তরাজ্যে ৩০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে বড় রেল ধর্মঘট

image-565175-1655878522.jpg

ডেস্ক রিপোর্ট : বেতন বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন দাবিতে যুক্তরাজ্যের ইংল্যান্ড, স্কটল্যান্ড এবং ওয়েলসজুড়ে ৩০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে বড় ধর্মঘট শুরু করেছেন হাজার হাজার রেলকর্মী।মঙ্গলবার সকাল থেকে বেতন নিয়ে কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বনিবনা না হওয়া, চাকরিতে ছাঁটাই, ক্রমবর্ধমান মুদ্রাস্ফীতি এবং জীবনযাত্রার ব্যয় বৃদ্ধির মতো নানা সংকটের কারণে রেলকর্মীরা এই ধর্মঘট শুরু করেছেন। খবর বিবিসির।

নেটওয়ার্ক রেল এবং ১৩টি ট্রেন ফার্মের ৪০ হাজারের বেশি ইউনিয়ন সদস্য মধ্যরাত থেকেই কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। ফলে মাত্র ২০ শতাংশ ট্রেন সেবা চালু রয়েছে। বহু এলাকাতেই আদৌ কোনো ট্রেন চলাচল করছে না।এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা। কর্মীরা বৃহস্পতিবার ও শনিবারও ধর্মঘট পালনের পরিকল্পনা করেছে। এতে অনেকেরই ট্রেনভ্রমণ বাতিল হয়ে গেছে এবং মানুষকে বিকল্প পরিবহণের ব্যবস্থা করতে বাধ্য হতে হচ্ছে।

বিকল্পব্যবস্থা হিসেবে মানুষ বাসের দিকে ঝুঁকে পড়ায় সেখানেও জট সৃষ্টি হয়েছে। পূর্ব ইংল্যান্ডে ট্রেন চলাচল মারাত্মকভাবে বিঘ্নিত হয়েছে। একেবারেই ন্যূনতম কিছু সেবা চালু রয়েছে। ফলে সেখানে মানুষ কেবল জরুরি প্রয়োজন ছাড়া চলাচল করতে পারছে না।থামসলিংক, গ্রেট নর্দার্ন, চিলটার্ন, ইস্ট মিডল্যান্ডস, লন্ডন, নর্থ ওয়েস্টার্ন ট্রেন সার্ভিস খুবই কম সেবা চালু রেখেছে।

আরও পড়ুন : ম্যারাডোনার সঙ্গে দি মারিয়াকে তুলনা করলেন তিনি

যুক্তরাজ্যজুড়ে রেলস্টেশনগুলো খাঁ খাঁ করছে, জনবিরল এই দৃশ্য ‘কোভিডের সবচেয়ে অন্ধকারাচ্ছন্ন দিনগুলোর মতোই’ মনে হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন নেটওয়ার্ক রেলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা।কয়েক দশকের মধ্যে কঠিন অর্থনৈতিক দুর্দশার মধ্য দিয়ে যাওয়া নাগরিকদের জন্য আরও বেশি কিছু করতে চাপের মুখে আছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।ধর্মঘট নিয়ে তিনি বলেন, কোভিড থেকে কেবল ঘুরে দাঁড়াতে থাকা ব্যবসা-বাণিজ্য ট্রেন ধর্মঘটের কারণে আরও ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

তবে ধর্মঘটের ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নগুলো বলছে, এটি কেবল শুরু। যে হারে দ্রব্যমূল্য আকাশচুম্বী হচ্ছে, তাতে শিক্ষক থেকে শুরু করে চিকিৎসক —এমনকি মেথর পর্যন্ত সবাই নিজ নিজ দাবি নিয়ে রাস্তায় নেমে আসবে। চলতি মাসে যুক্তরাজ্যে মুদ্রাস্ফীতি ১০ শতাংশ বেড়েছে।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top