গোমতীর বাঁধ ভাঙার আতঙ্কে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে স্থানীয়রা

image-564624-1655754954.jpg

ডেস্ক রিপোর্ট : কুমিল্লায় গোমতী নদীর বেড়ীবাঁধ ভেঙে যাওয়ার আতঙ্কে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে নদী তীরবর্তী বাসিন্দারা। যেকোনো সময় এ নদীর দুই পাড়ের বাঁধ ভেঙে যেতে পারে। সোমবার রাতে জেলার আদর্শ সদর, বুড়িচং, দেবিদ্বার, এবং মুরাদনগর উপজেলার বেশ কয়েকটি স্থানে বেড়ীবাঁধ ভেঙে যাওয়ার উপক্রম দেখা দিয়েছে। এতে গোমতী নদীর বেড়ীবাঁধ সংলগ্ন এলাকার বাসিন্দারা আতঙ্কিত হয়ে নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে।

এদিকে গত দুই দিনের বৃষ্টি এবং উজান থেকে নেমে আসা ভারতীয় পাহাড়ি ঢলে গোমতী নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। জানা যায়, ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের উদয়পুর এলাকা থেকে গোমতী নদীর উৎপত্তিস্থল। নদীটি ভারতের পাহাড়ি এলাকার সোনামুড়া হয়ে কুমিল্লা জেলার কটক বাজার সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে। নদীর দুই পাড়ে ৮২ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ রয়েছে।

এক সময়ের খরস্রোতা গোমতী নদীর প্লাবন থেকে রক্ষা পেতে নদীর দুইপাশে বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা হয়। কিন্তু গত দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে নদীটি তার নাব্যতা হারিয়ে ফেলায় যথাসময়ে গোমতী বেড়িবাঁধ সংস্কার করেনি কর্তৃপক্ষ। কিন্তু এবার ভারতে অতিবৃষ্টির কারণে প্রতিটি নদীতেই পানির প্রচণ্ড চাপ বেড়ে যায়। এতে নিচু এলাকা হিসেবে এসব পানি বাংলাদেশে প্রবাহিত হচ্ছে।

আরও পড়ুন : খুবির ক্লাস শুরু ১৭ জুলাই, পরীক্ষা ১৩ নভেম্বর

এরই ধারাবাহিকতায় ত্রিপুরা রাজ্যের পাহাড়ি এলাকার বৃষ্টির পানি গোমতী নদী হয়ে বাংলাদেশের মেঘনা নদীতে প্রবাহিত হচ্ছে। যার ফলে গোমতী নদীতে বিপদসীমার উপর দিয়ে এখন পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

এদিকে নদীর দুই ধারে বেড়ীবাঁধ এলাকা থেকে সিন্ডিকেট কর্তৃক অবৈধভাবে মাটি লুটের কারণে নদীর দুই পাড়ে বেড়ীবাঁধ ক্ষতবিক্ষত হয়ে গেছে। এসব ক্ষতবিক্ষত স্থান দিয়ে ঝিরঝির করে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। যেকোনো সময় বাঁধ ভেঙে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হতে পারে বলে জানান আশপাশের বাসিন্দারা। এতে গোমতী বেড়ীবাঁধ সংলগ্ন এলাকার বাসিন্দাদের মাঝে চরম উদ্বেগ এবং আতঙ্ক বিরাজ করছে।

জেলার বুড়িচং উপজেলার ময়নামতি এবং কামারখারা, আদর্শ সদর উপজেলার চাঁনপুর এলাকার কয়েকটি স্থান দিয়ে বেড়ীবাঁধ ছিদ্র হয়ে পানি বের হচ্ছে। এলাকার লোকজন রাত জেগে পাহারা দিচ্ছে এবং নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে।

এ বিষয়ে কুমিল্লার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান বলেন, গোমতী নদীতে অতিরিক্ত পানি প্রবাহের কারণে বেড়ীবাঁধের অভ্যন্তরে থাকা লোকজন এখন পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। নদীর পানি বিপদ সীমার উপরে প্রবাহিত হওয়ার কারণে গোমতী রক্ষা বাঁধ ঝুঁকিতে রয়েছে। আমরা বিষয়টি সার্বক্ষণিক নজর রাখছি।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top