খুলনায় সবার নজর কাড়ছে আধুনিক গ্রাম্য বাজার!

1-1-1.jpg

বেশ দূর থেকেই শোনা যাচ্ছে মানুষের হাঁক ডাক। কেউ এসেছেন বেচতে, কেউ কিনতে। তাদের হাঁক ডাকে মুখরিত হয়ে আছে এলাকা। খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কের খর্ণিয়া বাজারের আগেই ডুমুরিয়া উপজেলার টিপনা গ্রামের ‘ভিলেজ সুপার মার্কেট’র দুপুর হতে না হতেই এমন দৃশ্য প্রতিদিনের। উন্নত বিশ্বের কৃষি বাজারের ধারণা নিয়ে দেশে প্রথমবারের মতো গড়ে উঠেছে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ও সুবিধা সম্বলিত কৃষিপণ্যের এ বাজার।

বাজারটিতে রয়েছে ডিপো, ১০ হাজার লিটার উৎপাদন ক্ষমতার চিলার আইচ ফ্যাক্টরি, মসজিদ, ইলেকট্রিক্যাল ম্যাকানিক্যাল রুম, হর্টি ক্যালচার প্রসেসিং জোন, হর্টি প্যাকেজিং জোন, একোয়া প্রসেসিং জোন, একোয়া প্যাকেজিং জোন, একোয়া আড়ৎ, হর্টি আড়ৎ, ব্যাংক, চাইল্ড কেয়ার সেন্টার, ফার্মার ট্রেনিং সেন্টার, অফিস সিকিউরিটি রুম, টয়লেট জোন, বাউন্ডারী ওয়াল। আধুনিক স্থাপত্যশৈলী, তেমনই পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন আধুনিক এ বাজারটিতে দূর-দূরান্ত থেকে যারা প্রথমবার আসেন তারা অনেকেই বিস্মিত হন। অজ পাড়া গাঁয়ের একটি গ্রাম্য বাজার এত আধুনিক হতে পারে তা তাদের চিন্তায়ও ছিলো না।

প্রকল্প সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ সালে খুলনা জেলাধীন ডুমুরিয়া উপজেলার টিপনা গ্রামের শেখ বাড়ির সামনে ‘ভিলেজ সুপার নামের এ মার্কেটটি নির্মাণের উদ্যোগ নেয় ইন্টারন্যাশনাল এনজিও ‘সলিডাড়িডাড নেটওয়ার্ক এশিয়া’। উদ্যোগটি বাস্তবায়নে নেদারল্যান্ডের অর্থায়নে ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে ২ একর ১০ শতক জমির উপর ১০ কোটি ১৮ লাখ টাকা ব্যয়ে মার্কেটটির আনুষ্ঠানিক কাজ শুরু হয়। বাজারটি ২০১৮ সালের আগস্ট মাসে উদ্বোধন করা হয়।

খুলনা থেকে এ বাজারে আসা ক্রেতা মশিউর বলেন, গ্রামের মধ্যে এত আধুনিক বাজার দেখে সত্যিই অবাক হয়েছি। বাজারটির সম্পূর্ণটাই টাইলস করা। এখানের শাক-সবজি ও মাছ টাটকা। দামও কম। যে কারণে সময় করে এখানে বাজার করতে আসা।

বাজারের জন্মলগ্ন থেকে একাধিকবার আসা গ্লোবাল খুলনার আহবায়ক ও প্রতিষ্ঠাতা শাহ মামুনুর রহমান তুহিন বলেন, এটি একটি গ্রাম্য বাজার। যেমন আধুনিক স্থাপত্যশৈলী, তেমনই পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন আধুনিক এ বাজারটি। সাধারণত বাজার বলতে আমরা ধুলো ময়লা, বর্ষায় কাদায় মাখামাখি নোংরা যে পরিবেশ বুঝি, এটি তার সম্পূর্ণ বিপরীত। এখানে সিকিউরিটি, নামাজের জায়গা, রেষ্টুরেন্ট, রেষ্টরুম সবই আছে। বর্জ্য ব্যবস্থাপনা অত্যন্ত চমৎকার। মাছ তরিতরকারি একদম টাটকা। ফরমালিন বা ক্যামিকাল মুক্ত। যারা পাইকারি দরে মাছ কিনতে চান দুপুর ১ টার দিকে ওখানে চলে যাবেন।

তিনি গ্লোবাল খুলনার পক্ষ থেকে দাবি করেন খুলনার সকল বাজার গুলো এরকম আধুনিক করা হোক।

ডুমুরিয়ার বামুন্দিয়া গ্রামের আমিনুল ইসলাম বলেন, প্রান্তিক চাষিরা এ বাজারে ন্যায্য মূল্যে সরাসরি কৃষি পণ্য (ফল-মূল, শাক-সবজি, দুধ, মাছ ইত্যাদি) বিক্রি করতে পারছে। এ অঞ্চলের কৃষকদের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটছে এবং জীবন-যাত্রার মান উন্নত হচ্ছে। অর্থনীতিতেও এর বড় ধরনের ভূমিকা রাখছে এ বাজার।

এখানে ব্যবসার সাথে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কৃষকরা সরাসরি ন্যায্য মূল্যে তৃণমূলের কৃষি পণ্য বিক্রয় করতে পারছে এ বাজারে। এতে তাদের ভাগ্য উন্নয়ন হচ্ছে।

ডুমুরিয়ার খর্ণিয়ার ইউপি চেয়ারম্যান শেখ দিদারুল হোসেন দিদার বলেন, বিশ্বের আধুনিকতম কৃষিপণ্যের বাজারগুলোর আদলে টিপনা গ্রামে ভিলেজ সুপার মার্কেটে গড়ে তোলা হয়েছে । ডুমুরিয়া উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের কৃষকদের ফলানো শাক-সবজি মাছ এ বাজারে বিক্রি করা হয়।

তিনি আরও বলেন, এ মার্টেকে কৃষকদের সরাসরি পণ্য বিক্রির অবাধ সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। এ অঞ্চলের কৃষকদের ভাগ্যের পরিবর্তন ও জীবন-যাত্রার মান উন্নত হয়েছে।

চেয়ারম্যান জানান, প্রতিদিনই দুপুর ১২টার দিক থেকে বাজার বসতে শুরু করে। যা চলে রাত পর্যন্ত। খুলনা-ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে পাইকারি ব্যবসায়ীরা এখান থেকে শাক-সবজি ও মাছ কিনে নিয়ে যান।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: নিরাপত্তা সতর্কতা!!!