কয়রায় পুত্রের সংবাদ সম্মেলনের প্রতিবাদে পিতার পাল্টা সংবাদ সম্মেলন

download-1-1-678x381.jpg

কয়রা প্রতিনিধি, Prabartan | প্রকাশিতঃ ১৭:১০, ৩০-০৫-১৯

কয়রায় পুত্রের মিথ্যা সংবাদের প্রতিবাদে জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন পিতা।

৩০ মে বেলা ১১ টায় কয়রা উপজেলা প্রেসক্লাবে লিখিত সংবাদ সন্মেলন করেছেন উপজেলার ৩ নং কয়রা গ্রামের মৃত জেহের আলী গাজীর পুত্র সাবেক অধ্যাপক মোঃ মুছাদ্দেক হোসেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান,গত ২৬ মে আমার বড় পুত্র প্রভাষক মোঃ আবুল কালাম আজাদ সংবাদ সংবাদ সম্মেলনে আমার ও আমার ছোট পুত্র মোঃ মোশারাফ হোসেন এর বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে । গত ইং ২০১৫ সালে জনৈক সুভাষ সরদার দিং এর সাথে দেওয়ানী ১৯৪/১৯৬৫ নং মামলায় খুলনার যুগ্ন জেলা জজ চতুর্থ আদালত কে ভুর বুঝাইয়া তার মা বোন ও তার নামীয় সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করার জন্য একটি জাল এবং তঞ্চকতা পুর্ন সোলে ডিগ্রি করি। আমার বক্তব্য হল আমি বা আমরা ওই কোর্টে কোন মামলা করিনাই । যে সোলে ডিগ্রির মামলা করা হয়েছে তা দেওয়ানী ১৯৪/১৯৬৫ যুগ্ন জেলা জর্জ প্রথম আদালত । উক্ত সোলে মামলায় তার সহ সংশিষ্ট ব্যক্তির সাক্ষর আছে। সেখানে কোন কোন জাল বা তঞ্চকতা মুলক কাজ করা হয়নি।

দ্বিতীয়ত তার নামীয় সম্পত্তি আত্মসাতের কোন প্রশ্নই উঠেনা। কেননা ২৪/০১/১৯৮০ তারিখে ১৫৬৭ /৮০ নং দলিলে আমি আমার নাম সহ আমার স্ত্রী আনোয়ারা এবং দুই পুত্র মোঃ মোশারাফ হোসেন ও এ,কে আজাদ সৈয়দ মোস্তাফিজুর রহমান এর নামে সম্পত্তি ক্রয় করি। পরবর্তীতে আমার পুত্র এ কে আজাদ সৈয়দ মোস্তাফিজুর রহমান মৃত্যু বরন করে ।

বর্তমানে আমার বড় পুত্র আবুল কালাম আজাদ ঐ নাম নিজ নামের সামিল করে এই জমির দাবিদার করছে যা সম্পূর্ণ তঞ্চকতা মুলক ও যোগসাজস। উক্ত জমি ক্রয় করার সময় আমার তিন পুত্র মোঃ আবুল কালাম আজাদ,এ কে আজাদ সৈয়দ মোস্তাফিজুর রহমান ও মোঃ মোশারাফ হোসেন জন্ম গ্রহন করে।তখন তাদের বয়স ৬ বছর ,৩ বছর, ও অন্য জনের ৬ মাস।

আমি জমি ক্রয় করার সময় ছোট দুই পুত্রের নামে ক্রয় করি । অথছ আমার বড় পুত্র মোঃ আবুল কালাম আজাদ দাবী করে আসছে । যা সম্পুর্ন মিথ্যা জালিয়াতি, যোগসাজস ও তঞ্চকতাপুর্ন। আমার আকুল আবেদন এরুপ শিক্ষিত তঞ্চাকতাকারী পুত্রের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রশাসনের সু-দৃষ্টি কামনা করছি।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top