গুজরাটের চমক নাকি রাজস্থানের দ্বিতীয় শিরোপা?

ipl-final-2205290602.jpg

ডেস্ক রিপোর্ট : গুজরাট টাইটান্স এবারের নবাগত দল। অধিনায়কত্বেও নতুন হার্দিক পান্ডিয়া। একের পর এক চমক দেখিয়ে নিজেদের প্রথম আসরেই ফাইনালে তারা। এবার সবচেয়ে বড় চমক কি তারা দেখাতে পারবে শিরোপা জিতে? নাকি ২০০৮ সালের প্রথম আসরের চ্যাম্পিয়ন রাজস্থান রয়্যালস হাতে নিবে তাদের দ্বিতীয় ট্রফি?

বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ৮টায় আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হচ্ছে দুই দল, যেখানে গুজরাট প্রথমবার তাদের ঘরের দর্শকদের সামনে খেলতে যাচ্ছে। রাজস্থান রয়্যালসেরও এটি ছিল হোম ভেন্যু। নিজেদের দ্বিতীয় ফাইনালে গোলাপি শহরের দলটিও তাই পাচ্ছে ঘরের আবহ।

গুজরাটের শক্তি ডেভিড মিলারের হিংস্র ব্যাটিং, ম্যাথু ওয়েডের আগ্রাসন, শুভমান গিলের শান্ত মেজাজ এবং ঋদ্ধিমান সাহার ভয়-ডরহীন ব্যাটিং। এছাড়া শুরু ও শেষে পাওয়া প্লে ও ডেথ ওভারে দারুণ বোলিং তাদের এগিয়ে রাখছে। রাজস্থান এই দুটি চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় কীভাবে ব্যাটিং পরিকল্পনা করে সেটাই দেখার বিষয়।

অন্যদিকে রোববারের ফাইনালে রাজস্থান নামছে প্রয়াত স্পিন লিজেন্ড শেন ওয়ার্নে অনুপ্রাণিত হয়ে। ১৪ বছর আগে ওয়ার্নের নেতৃত্বে প্রথম আসরের চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল দলটি। স্পিন কিংবদন্তির মৃত্যুর কয়েক সপ্তাহ পর তারা উঠেছে ফাইনালে।

আরও পড়ুন : ভোগ্য পণ্যের বাজার নজরদারি করবে এফবিসিসিআই

দলটির তারকা ব্যাটসম্যান জস বাটলার বলেছেন, ‘শেন ওয়ার্ন… রাজস্থান রয়্যালসের জন্য খুব প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব এবং প্রথম মৌসুমে এই দলকে সাফল্য এনে দিয়েছিলেন। আমরা তাকে খুব মিস করি, কিন্তু আমরা জানি তিনি অনেক গর্ব নিয়ে আমাদের দিকে তাকিয়ে আছেন।’

গুজরাটের বিপক্ষে প্রথম কোয়ালিফায়ারে বাটলারের দারুণ ইনিংস বৃথা গেলেও দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুকে হারাতে অবদান রেখেছেন ১০৬ রান করে। এই মৌসুমে চারটি শতক হাঁকিয়ে বিরাট কোহলির পাশে বসেছেন তিনি। ৮২৪ রান করে এই আসরের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক।

রাজস্থানের শিরোপার লড়াই খুব একটা সহজ হবে না। দুইবারের দেখাতেই গুজরাটের কাছে হেরেছিল তারা। প্রথম দেখায় হার্দিকের অপরাজিত ৮৭ ও ১৮ রান খরচায় ১ উইকেট এবং মিলারের ১৪ বলে ৩১ রানের ঝড়ে ডুবতে হয়েছিল রাজস্থানকে। বাটলারের ঝলমলে হাফ সেঞ্চুরি ওইবারও বিফলে যায়। রাজস্থান হেরে যায় ৩৭ রানে।

আর কদিন আগে বাটলারের ৮৯ রানের সুবাদে রাজস্থান ১৮৮ রান করলেও গুজরাট ২-০ করে মিলারের শেষ ওভারের টানা তিন ছয়ে। এবারও তার সঙ্গে ক্রিজে ছিলেন হার্দিক।

রাজস্থান কোচ কুমার সাঙ্গাকারা বলেছেন, ‘এটা সত্যিই কঠিন চ্যালেঞ্জ হতে যাচ্ছে। (পান্ডিয়া) একজন ব্যতিক্রমী খেলোয়াড়। সে তার দলকে সত্যিই ভালোভাবে নেতৃত্ব দিয়েছে। তারা ব্যতিক্রম দল, অনেক দক্ষ এবং সত্যিই ভালোভাবে গোছানো একটি দল। পুরো টুর্নামেন্টে তারা ধারাবাহিকভাবে ভালো খেলেছে।’

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top