জাতীয় সরকারের প্রস্তাব হলো কুঁজো মানুষের চিৎ হয়ে শোয়ার স্বপ্ন : আব্দুর রহমান

192033_bangladesh_pratidin_Pabna-Ph.jpg

ডেস্ক রিপোর্ট : আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রহমান বলেছেন, সংবিধানের বাইরে জাতীয় সরকারের নামে ষড়যন্ত্র হলে বাংলার জনগণ মেনে নেবে না। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নির্বাচনকালীন সরকার ও স্বাধীন নির্বাচন কমিশনের অধীনে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। শনিবার দুপুরে পাবনার আমিনপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কলেজ মাঠে নবগঠিত আমিনপুর থানা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর জাতীয় সরকারের প্রস্তাবকে কুঁজো মানুষের চিৎ হয়ে শোয়ার স্বপ্নের মতো মন্তব্য করে আব্দুর রহমান বলেন, এক দলের এক নেতা, যারা আমাদের একটা ইউনিয়ন পর্যায়ের নেতার সঙ্গে নির্বাচন করে পারবেন না অথচ তারা জাতীয় সরকারের স্বপ্ন দেখছেন।

নেতাকর্মীদের আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে নির্দেশনা দিয়ে আওয়ামী লীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রহমান বলেন, ২০২৪ সালের জানুয়ারি মাসে জাতীয় নির্বাচন হবে। সেই নির্বাচনে আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনা যে প্রার্থী দিবেন সেই প্রার্থীর পেছনে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করতে হবে। যদি না করেন তাহলে আপনাদের কপালে দুঃখ আছে। শেখ হাসিনা থাকলে দারিদ্র্য এবং বঞ্চনা মুক্ত বাংলাদেশ হবে। অন্য কোন রাজনৈতিক শক্তির উত্থান বাংলাদেশের ধ্বংস ডেকে আনবে। আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীদের যেকোনো ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে প্রস্তুত থাকতে হবে।

সম্মেলনে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন বলেন, খালেদা জিয়া বলেছিলেন আওয়ামী লীগ পদ্মা সেতু করতে পারবে না, করলেও সাধারণ মানুষ সেই সেতু দিয়ে চলাচল করবে না। আমাদের নেত্রী দেখিয়ে দিয়েছেন কিভাবে নিজেদের অর্থায়নে পদ্মা সেতুর মতো এরকম প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে হয়। আগামী জুন মাসেই পদ্মা সেতু উদ্বোধন হবে।

আমিনপুর থানা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক অনিল কুন্ডু সাহার সভাপতিত্বে সম্মেলনে আরও বক্তব্য দেন, পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপি, পাবনা-২ আসনের সংসদ সদস্য আহমেদ ফিরোজ কবির প্রমুখ। আমিনপুর থানায় প্রথমবারের সম্মেলন ঘিরে সকাল থেকেই ছিলো সাজ সাজ রব। দুপুরে কাশীনাথপুর ডাক বাংলোয় দ্বিতীয় অধিবেশনে ইউসুফ হোসেন সভাপতি ও রেজাউল হক বাবু সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। একই সাথে এ এম রফিকুল্লাহ, শাহীন চৌধুরী ও সুষমা সাহাকে সহ সভাপতি এবং এজাজ আহমেদ সোহাগকে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা দেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপি।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top