২৪১০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৮ ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন

Govt_Logo_1-2205180901.jpg

ডেস্ক রিপোর্ট :২৪১০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৮ ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি।বুধবার (১৮ মে) অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কমিটির ভার্চুয়াল সভায় ক্রয় প্রস্তাবগুলো অনুমোদন দেওয়া হয়।সভায় কমিটির সদস্য, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিনিয়র সচিব, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব ও কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সভা শেষে অনুমোদিত ক্রয় প্রস্তাবগুলোর বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী।অতিরিক্ত সচিব বলেন, অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির ১২তম এবং সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির ১৬তম সভা হয়েছে। অর্থনৈতিক কমিটির অনুমোদনের জন্য ৩টি এবং ক্রয় কমিটির অনুমোদনের জন্য ৯টি প্রস্তাব উপস্থাপন করা হয়।

আরও পড়ুন : অসময়ে বাজারে উঠেছে শিম, কেজি ২০০ টাকা

ক্রয় কমিটির প্রস্তাবগুলোর মধ্যে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের ৩টি, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের ২টি, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের ১টি, কৃষি মন্ত্রণালয়ের ১টি, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের ১টি এবং বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের ১টি প্রস্তাব ছিল। তবে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবটি প্রত্যাহার করা হয়।

ক্রয় কমিটির অনুমোদিত ৮টি প্রস্তাবে মোট অর্থের পরিমাণ ২,৪১০ কোটি ৬১ লাখ ২৫ হাজার ২৩৫ টাকা।অতিরিক্ত সচিব বলেন, সভায় ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর প্রকল্পের বিস্তারিত সম্ভাব্যতা সমীক্ষা (১ম সংশোধিত)’ প্রকল্পের ভেরিয়েশন প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। প্রকল্পে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হিসেবে জাপানের নিপ্পন কোই কোম্পানি লিমিটেডকে ১২০ কোটি ২০ লাখ ৩০ হাজার ৩৪ টাকায় নিয়োগের ক্রয় প্রস্তাব ২০১৬ সালের ১৭ আগস্ট তারিখের সিসিজিপি সভায় অনুমোদিত হয়।

পরবর্তীতে চুক্তি অনুসারে প্রকল্পের সম্ভাব্যতা সমীক্ষা কাজ পরিচালনায় বেশি সময় ব্যয় হওয়ায় প্রকল্প বাস্তবায়ন দীর্ঘায়িত হয়। প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানোর কারণে ভেরিয়েশন বাবদ অতিরিক্ত ১৩ কোটি ২৬ লাখ ২৪ হাজার ৩৩১ টাকা ব্যয় বাড়ানোর ক্রয় প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি।তিনি বলেন, ‘সরাসরি ক্রয় প্রক্রিয়ায় মোটরযানের রেট্রো-রিফ্লেক্টিভ নম্বরপ্লেট, রেডিও ফ্রিক্যুয়েন্সি আইডেনটিফিকেশন ট্যাগ ও স্মার্ট কার্ড ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট সরবরাহ সংক্রান্ত ৩য় পর্যায়ের ক্রয় চুক্তি অনুমোদন দিয়েছে কমিটি।

তিনি বলেন, ২০১৭ সালের ১৪ জুন সিসিজিপি সভার অনুমোদনক্রমে ১৫ বছর মেয়াদে ‘মোটরযানের রেট্রো-রিফ্লেক্টিভ নম্বরপ্লেট, রেডিও ফ্রিক্যুয়েন্সি আইডেনটি ফিকেশন ট্যাগ ও স্মার্ট কার্ড ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট সরবরাহের নিমিত্ত বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরি লিমিটেড (বিএমটিএফ) এর সঙ্গে ৫ বছর অন্তর ২য় পর্যায় চুক্তির মেয়াদ আগামী ৩০ মে শেষ হবে।

নেগোসিয়েশনের মাধ্যমে সুপারিশকৃত ৩য় বা চূড়ান্ত পর্যায়ে ৫ বছর মেয়াদী চুক্তির আওতায় ৬ ধরনের মোট ৩০ লাখ ৪৫ হাজার ৯০৯ সেট নম্বরপ্লেট ও সমসংখ্যাক আরএফআইডি ট্যাগ, প্রতিস্থাপনযোগ্য ১ লাখ ১০ হাজার ৫২২ ইউনিট নম্বরপ্লেট ও আরএফআইডি ট্যাগ এবং ৪০ লাখ ৩৫ হাজার ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট সর্বমোট ৮৩৫ কোটি ২৬ লাখ ৩৩ হাজার ২৫৫ টাকায় বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরি লিমিটেড (বিএমটিএফ) এর কাছ থেকে সরাসরি ক্রয় প্রক্রিয়ায় ক্রয়ের প্রস্তাবে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

অতিরিক্ত সচিব বলেন, ‘জেলা মহাসড়ক যথাযথ মান ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরণ (বরিশাল জোন)’ প্রকল্পের প্যাকেজ নং-ডব্লিউপি-১০ এর পূর্ত কাজের ভেরিয়েশনের প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। প্রকল্পের আওতায় পূর্ত কাজ যৌথভাবে রানা বিল্ডার্স প্রাইভেট লিমিটেড, ঢালি কন্সট্রাকশন লিমিটেড এবং হাসান টেকনো বিল্ডার্স লিমিটেড-এর নিকট থেকে ৩৪ কোটি ৫০ লাখ ৫২ হাজার ৭৬৬ টাকায় ক্রয়ের প্রস্তাব সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় কর্তৃক ২০১৮ সালের ৮ নভেম্বর তারিখ অনুমোদিত হয়।

সে অনুসারে কাজ চলমান অবস্থায় প্যাকেজের মেয়াদ বাড়ানো এবং অতিরিক্ত কাজ যুক্ত হওয়ায় ভেরিয়েশন বাবদ অতিরিক্ত ৭ কোটি ৩২ লাখ ১৩ হাজার ৬৯১ টাকা ব্যয় বাড়ানোর প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি।সভায় ‘মোংলা বন্দরের জন্য সহায়ক জলযান সংগ্রহ’ প্রকল্পের আওতায় ১টি পাইলট মাদার ভেজেল ক্রয় প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি।

প্রকল্পের আওতায় ১টি পাইলট মাদার ভেসেল এবং সহায়ক যন্ত্রপাতি ও সেবা ক্রয়ের জন্য এক ধাপ দুই খাম দরপত্র পদ্ধতিতে দরপত্র আহ্বান করা হলে ৩টি দরপ্রস্তাব জমা পড়ে। তার মধ্যে কারিগরিভাবে একমাত্র রেসপন্সিভ দরদাতা কর্ণফুলী শিপ বিল্ডার্স লিমিটেড ১৮৬ কোটি ৯৫ লাখ ৫৫ হাজার ৯০ টাকা উল্লেখ করে ১টি পাইলট মাদার ভেসেল এবং সহায়ক যন্ত্রপাতি ও সেবা সরবরাহ করবে।

তিনি বলেন, ‘মোংলা বন্দরে আধুনিক বর্জ্য ও নিঃসৃত তেল অপসারণ ব্যবস্থাপনা’ প্রকল্পের আওতায় সেলফ প্রপেলড ব্যারেজ, সার্ভিস টাগ বোট, পনটন উইথ মুরিং গিয়ার অ্যান্ড ডাম্ব ব্যারেজ কেনার প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। প্রকল্পের একটি প্যাকেজের আওতায় প্রস্তাবিত পণ্যগুলো কেনার জন্য এক ধাপ দুই খাম দরপত্র পদ্ধতিতে দরপত্র আহ্বান করা হলে মাত্র ১টি দরপ্রস্তাব জমা পড়ে।

প্রস্তাবটি কারিগরি ও আর্থিকভাবে রেসপনসিভ হয়। দরপত্রের সব প্রক্রিয়া শেষে রেডিয়ান্ট শিপইয়ার্ড, ঢাকাকে টিইসি একমাত্র রেসপনসিভ দরদাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে ঘোষণা করে।  প্রকল্পে ব্যয় হবে ৪০ কোটি ৯০ লাখ ২ হাজার ৫০০ টাকা।সভায়, ‘এস্টাব্লিশমেন্ট অব গ্লোবাল মেরিটাইম ডিস্ট্রেস অ্যান্ড সেইফটি সিস্টেম অ্যান্ড ইন্টিগ্রেটেড মেরিটাইম নেভিগেশন সিস্টেম প্রকল্পে পরামর্শক সেবার ভেরিয়েশন প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি।

প্রকল্পে নিয়োজিত পরামর্শক প্রতিষ্ঠান এএনএসই টেকনোলজিস-এর ভেরিয়েশন ভেরিয়েশন প্রস্তাবটি মূল চুক্তিমূল্যের চেয়ে ৫০ শতাংশ  বেশি হওয়ায় তা সংশোধন করার নির্দেশনা দেওয়া হয়। এ অবস্থায়, প্রকল্পের কাজ চলমান থাকায় পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের চুক্তির মেয়াদ ২০২০ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ২০২২ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত ৩০ মাস বাড়ানোর জন্য ভেরিয়েশন বাবদ অতিরিক্ত ১০ কোটি ৩৪ লাখ ৯৬ হাজার টাকা (সংশোধিত) ব্যয় বাড়ানোর প্রস্তাবে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন : ওবায়দুল কাদের প্রতিদিন মুখস্থ পুঁথিপাঠ করেন: রিজভী

তিনি বলেন, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধি (বিশেষ বিধান) আইন-২০১০ (সর্বশেষ সংশোধনীসহ)-এর আওতায় মাস্টার সেল অ্যান্ড পারচেজ অ্যাগ্রিমেন্ট স্বাক্ষরকারী প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্য থেকে কোটেশনের মাধ্যমে স্পট মার্কেট থেকে ১ কার্গো এলএনজি আমদানির একটি প্রস্তাবে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এজন্য ব্যয় হবে ৯০৯ কোটি ১৪ লাখ ৫০ হাজার ৩৬৮ টাকা।

মেসার্স ভাইটল এশিয়া প্রাইভেট লিমিটেড, সিঙ্গাপুর এই এলএনজি সরবরাহ করবে।তিনি বলেন, সভায় রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে চুক্তির আওতায় মরক্কো থেকে ৪০ হাজার মেট্রিক টন ডিএপি সার আমদানির একটি প্রস্তাবে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রতি মেট্রিক টন সারের দাম ১১৭৭.৫০ ডলার হিসেবে বাংলাদেশি মুদ্রায় মোট ব্যয় হবে ৪০৭ কোটি ৪১ লাখ ৫০ হাজার টাকা।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top