এখন থেকে কোনো অনুমতির তোয়াক্কা করব না : আমীর খসরু

jashore-20220514195015.jpg

যশোর প্রতিনিধি : বিএনপি ভোটের মাঠে থাকবে; চোরের মাঠে থাকবে না’, এমন মন্তব্য করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, আওয়ামী লীগ জনগণের ওপর আস্থা নেই। তাই তারা নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে ভয় পাচ্ছে।

তারা বলছে, আগামী নির্বাচনে ভোটের মাঠে না থাকলে বিএনপির রাজনীতি নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। আমরা আগামী দিনে দেশে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে যে নির্বাচন হবে, সেই নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে। কিন্তু চোরের মাঠে বিএনপি যাবে না। কারণ, ভোট চুরি করে বিএনপি কখনো ক্ষমতায় আসেনি, আর আসার স্বপ্নও দেখেনি।

শনিবার (১৪ মে) বিকেলে জেলা বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যকালে তিনি এসব কথা বলেন।

জেলা বিএনপির আয়োজনে বিএনপির এই স্থায়ী কমিটির সদস্য আরও বলেন, শ্রীলঙ্কা সরকার পতনের পর আওয়ামী লীগের নেতাদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। তারা বিএনপির সভা-সমাবেশ করতে দিচ্ছে না; এর একটাই কারণ, জনগণের আতঙ্ক। তা না হলে আমরা জনসভা করব, বক্তব্য দিব, চলে যাব। এটা না দেওয়ার তো কোনো কারণ দেখছি না।

আওয়ামী লীগ অবৈধ পন্থায়, জনগণের রায় না নিয়ে ক্ষমতায় রয়েছে জানিয়ে আমীর খসরু বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থেকে মানুষের বাকস্বাধীনতা, সংবিধান হরণ করেছে। তাই শ্রীলঙ্কায় জনগণের প্রতিবাদ আর সরকার পতন দেখে এখন শেখ হাসিনাও তার লোকজনদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

সরকারের প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে তিনি বলেন, যেসব দেশের প্রধান জনগণের রায় মানতে নারাজ, সেসব দেশে কিন্তু জনগণ প্রতিবাদে ফুঁসে উঠেছে। একপর্যায়ে সেই সরকারকে ঠিকই জনগণ গদি ছাড়িয়েছে। বাংলাদেশেও সময় কিন্তু এসে গেছে। এখন থেকে আমরা আর মিছিল-মিটিংয়ের অনুমতি নেব না। এখন থেকে আমরা কোনো অনুমতির তোয়াক্কা করব না।

জনগণকে প্রস্তুত হওয়ার কথা বলে তিনি বলেন, আপনারা প্রস্তুতি নেন। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার আন্দোলনের রূপরেখা খুব শিগগিরই প্রকাশ করা হবে। আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়া বন্দি, এই ব্যাপারে কারও কোনো দ্বিমত নাই। তার অবর্তমানে আমাদের দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান খুব তাড়াতাড়ি আগামী দিনে আন্দোলনের রূপরেখা উপস্থাপন করবে। আন্দোলনের রূপরেখা অনুযায়ী ভোট চুরি করে আসা এই অবৈধ সরকারকে বিতাড়িত করতেই হবে।

যশোর জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন দলটির খুলনা বিভাগীয় ভারপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত।

এ সময় আরও বক্তব্য দেন জেলা বিএনপির সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট সাবেরুল হক সাবু, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সাবেরা নাজমুল মুন্নী, জেলা বিএনপির সদস্য মিজানুর রহমান খান প্রমুখ। এ ছাড়া জেলা বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন স্তরের নেতারাও উপস্থিত ছিলেন।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top