নিজের ক্রসফায়ার বা ফাঁসি চাইবে ডাঃ তারিম

107290924_3291885390862894_4047555709083538273_n-1.jpg

ডেস্ক রিপোর্ট: ডাক্তার ইউনুসুজ্জামান খান তারিম খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মেডিক্যাল অফিসার। খুলনা শহরেরই একটি বেসরকারি হাসপাতালের অংশীদারি মালিক তিনি। তবে আলোচিত মেডিক্যাল ভর্তির কোচিং সেন্টার ‘থ্রি ডক্টরস’-এর পরিচালক হিসেবেই তাঁর ব্যাপক পরিচিতি। কোচিং সেন্টারের পোস্টারে তাঁর নাম আর ছবির নিচে লেখা হয়—‘ডাক্তার বানানোর কারিগর’ বা ‘ডাক্তার বানানোর ম্যাজিক ম্যান’।

আজ সোমবার একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত হয়েছে, দেড় যুগে তাঁর কোচিং সেন্টারের প্রায় চার হাজার শিক্ষার্থী মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হতে পেরেছেন। মাঝে ভর্তি জালিয়াতির সঙ্গে থ্রি ডক্টরস কোচিং সেন্টারের নাম এলেও তারিম আছেন বহাল। অবশেষে এই ডাক্তার বানানোর কারিগরের গোমর ফাঁস হতে যাচ্ছে। মেডিক্যালে ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস করে জালিয়াতচক্রের সঙ্গে ডা. তারিমের সম্পৃক্ততা পেয়েছে অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

নিউটি প্রকাশিত হওয়ার পরে রাত ৯ টা ৪০ মিনিটের দিকে থ্রি ডক্টরস, খুলনার ফেসবুকের তিনি একটি পোষ্ট দিয়েছেন। ওই পোষ্টে তিনি নিজেই রাষ্ট্রের কাছে ক্রসফায়ার বা ফাঁসি চেয়ে নিবেন বলে জানিয়েছেন।

তার লেখা পোষ্টটি নিছে হবহু তুলে ধরা হলো:

“আমি (ডাঃ তারিম) নিজেই
রাষ্ট্রের কাছে ক্রসফায়ার বা ফাঁসি চেয়ে নিব।
আমি যদি মেডিকেল প্রশ্নপত্র ফাঁসচক্র বা জালিয়াতির সাথে বিগত ২০ বছরে কখনও জড়িত থেকে থাকি।
সঠিক তদন্ত হোক। রাষ্ট্রের কাছে একটাই দাবি।
যেকোন স্টুডেন্ট বা অভিভাবক একজন মানুষও যদি প্রমান দিতে পারে। আমি ঐ ধরনের কোন অপরাধ করেছি। আমি রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ শাস্তি মাথা পেতে নিব।
ঘটনাঃ
২০১৯ সালে মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার ঠিক আগের দিন প্রথম আলো পত্রিকা মন গড়া নিউজ করলো।
(অথচ আমি নিজের বাসায়ও বিগত ১২ বছর প্রথম আলো পড়ি।)
অভিযোগঃ
(১) আমি শত শত কোটি টাকার মালিক।
(২) প্রত্যেক স্টুডেন্টের কাছ থেকে ৩৫-৪০ লাখ টাকা নিয়ে আমি প্রশ্ন ফাঁস করে চান্স পাইয়ে দি।
পেপারে ঐ নিউজ হওয়ার জন্যঃ
আমাকে খুলনা ডিসি অফিসের ম্যাজিস্ট্রেট মহোদয় তদন্তের জন্য ডাকলেন। পুলিশ নিল, RAB র কাছে হস্তান্তর করলেন। ৩ টা প্রতিষ্ঠান প্রাথমিক তদন্ত করে, ঐ ধরনের নিউজের কোন সত্যতা না পেয়ে, কোন ধরনের কেস বা মামলা ছাড়াই ১ দিন পরই আমাকে মুক্তি দিলেন। জিডি হল, তদন্ত হল, কোর্টের রায় পেলাম, “আমার বিরুদ্ধে পেপারে লেখা নিউজের কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি।”
দুদক তদন্ত করছে, সিআইডি তদন্ত করছে।
আমি সকল ধরনের সহযোগিতা করছি। তদন্তে অপরাধী প্রমান হলে, আমার যেকোন শাস্তি মাথা পেতে নিতে কোন আপত্তি নেই।
কিন্তু, আজ ২০২১ সালে এসে আবারও
কালের কন্ঠ মনগড়া নিউজ করলো। আমি কখনও মিডিয়াকে বিশেষ উপায়ে ম্যানেজ করতে চাইনি। আমার সকল সম্পত্তির হিসাব ও ধার্যকৃত আয়কর দিয়ে নিয়মিত আয়কর ফাইল মেইনটেইন করে এসেছি।
অথচ, বিগত ২০ বছরে আমার বৈধ আয়ে ক্রয় করা সম্পত্তির ৮/১০ গুন দাম বাড়িয়ে বাড়িয়ে দেখিয়ে উনারা একটা মন গড়া নিউজ করলেন।
(১) যে জমি আমি ১০ বছর আগে খুলনা কেডিএ নিকট থেকে কিস্তিতে ২৫ লক্ষ টাকায় কিনেছি, আয়কর ফাইলে আছে, উনারা লিখলেন তার দাম ৪ কোটি টাকা!!!
(২) যে ফ্ল্যাট ৬/৭ বছর আগে ৩৪ লক্ষ টাকায় কেনা আয়কর ফাইলেও আছে, সে ফ্ল্যাটের দাম লিখলেন ৭০ লাখ!!
আমার একাউন্টে নাকি ২৫ কোটি টাকা!!!
২৫ কোটি তো দূরে থাকুক ১ কোটির অর্ধেকও হবে না!!
উনাদের হাতে কলম আছে, উনারা যদি মন গড়া নিউজ করেন আমার করার কিছুই নেই।
পেপার বারবার লেখা হয়, আমি ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি। এমনভাবে লেখা হয়, যেন, আমি ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগ করে মহাপাপ করেছি।
আরে ভাই, ওটা আমার আদর্শ। মেরে ফেললেও আমার রক্ত থেকে এই আদর্শ যাবে না।
গত ২০ বছর আমার টিউশনির আয়, অর্থোপেডিক্স বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক হিসেবে পেশাগত আয়, পিতার দেওয়া সম্পদের আয়, আমার স্ত্রী একজন বিসিএস সরকারী চিকিৎসক, তার আয়। সব মিলিয়ে গাড়িসহ কিছু সম্পত্তি আমাদের আছে। সেটা কোন অন্যায়ের টাকায় কেনা নয়।
জানি, মানুষ খারাপ বা নেগেটিভ কথায় বেশি গ্রহন করে। পেপারে যা যা লেখা হয়, সেটাই সবাই বিশ্বাস করবে। আমরা যারা ছাত্রলীগ, যুবলীগ, আওয়ামী লীগ করি বা করেছি। দু’টো পয়সা আয় করলে, হাতে গোনা কিছু কিছু মিডিয়া র চোখে আমরা মহা অপরাধী। শিবিরের রেটিনা কোচিং বা ছাত্রদলের মেডিকো কোচিং বছরে ১৫/২০ কোটি টাকা আয় করলেও, তাদের নিয়ে কোন নিউজ হয় না। তাতেও দুঃখ নেই।
কিন্তু,
রাষ্ট্রের একজন নগন্য নাগরিক হিসেবে আমার একটাই দাবি, দুদুক এবং সিআইডি র তদন্ত চলছে।
যদি আমার ঐ ধরনের কোন অপরাধ প্রমানিত হয়, আমাকে ক্রসফায়ার বা ফাঁসি দেওয়া হোক। আমার কোন দুঃখ থাকবে না।
আর, সাংবাদিক ভাইদের কাছে একটাই অনুরোধ, ভাইয়েরা, আপনারা একটু সঠিক তথ্য দিয়ে নিউজ করবেন। আমাদেরও বৌ, সন্তান, পরিবার আছে।
দয়া করে, মন গড়া এমন নিউজ করবেন না, যেন লজ্জায় আমাদের আত্মহত্যা করতে হয়। একটু নিঃশ্বাস নিয়ে বাঁচতে দিবেন, প্লিজ। সঠিক নিউজ করবেন।।”

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

scroll to top
error: নিরাপত্তা সতর্কতা!!!