খুলনায় মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতার উপর হামলার অভিযোগ অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে

IMG20200327195312.jpg

খুলনার পাইকগাছায় এক মাদরাসা অধ্যক্ষ ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে অপর এক মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা ও তার পরিবারের উপর হামলা এবং মারপিটের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতাসহ ৪জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে প্রতিষ্ঠাতা আব্দুর রবের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে।

প্রাপ্ত অভিযোগে জানা গেছে, উপজেলার কমলাপুর গ্রামের মৃত ইয়াছিন আলী গাজীর ছেলে আব্দুর রব (৫০) পারিবারিকভাবে ২০১০ সালে মা বেগম আভিরুন্নেছা নামে মহিলা মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করে। বর্তমানে বসত বাড়ীর পাশেই মাদরাসার ৫ তলা বিশিষ্ট নতুন ভবন নির্মাণ কাজ করছে।

আব্দুর রব ও তার পরিবারের লোক অভিযোগ করে বলেন, প্রতিবেশী মৃত সোহরাব হোসেনের ছেলে ঘুগরাকাটি ফাজিল ডিগ্রি মাদরাসার অধ্যক্ষ জাহাঙ্গীর হোসেন ওরফে আজগার আলীর সাথে জায়গা জমি নিয়ে দীর্ঘদিন বিরোধ চলে আসছে। পাশাপাশি আজগার আলী গবাদি পশুর বিলের যাতায়াতের রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে সেখানে পুকুর খনন করায় তাদের গবাদি পশু নির্মাণাধীন মাদরাসার মধ্য দিয়ে যাতায়াত করে এবং মল-মুত্র ত্যাগ করে নোংরা করে আসছে। এ ব্যাপারে তাদেরকে গবাদি পশুর অবাধ যাতায়াত ও নোংরা করা প্রসঙ্গে নিষেধ করলে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে গত শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার দিকে আমাদের বসত বাড়ীতে অনাধিকার প্রবেশপূর্বক গালিগালাজ করতে থাকে। এর প্রতিবাদ করায় প্রতিপক্ষরা আমাদের উপর হামলা, ভাংচুর ও মারপিট করে। প্রতিপক্ষদের দা-এর কোপে আব্দুর রব গুরুতর জখম হয়।

এছাড়া আব্দুর রকিব (৪৫), হেলাল উদ্দীন (৩০) ও পাইকগাছা সরকারি কলেজের প্রদর্শক আব্দুর রউফ (৫৮) আহত হয়। আহতদের মধ্যে আব্দুর রবের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

খবর পেয়ে থানা পুলিশের এস, আই মিন্টু মিয়া ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। এ ঘটনায় কলেজ প্রদর্শক আব্দুর রউফ বাদী হয়ে প্রতিপক্ষ জাহাঙ্গীর হোসেন আজগার আলী, মেয়ে আসমা খাতুন, সুমাইয়া খাতুন, মুন্নী খাতুন ও ছেলে মহিবুল্লাহকে আসামী করে থানায় মামলা করেছে। যার নং- ৩২, তাং- ২৮/০৩/২০২০ইং।

এদিকে, ঘটনার পর সরেজমিন গেলে জাহাঙ্গীর হোসেন ওরফে আজগার আলীর ভিন্ন ভিন্ন নাম পরিচয় পাওয়া যায়। ইং- ১৮/০৮/২০১৯ তারিখে চাঁদখালী ইউনিয়ন পরিষদের ৪৩৯/১৯ নং স্মারকের ওয়ারেশ কায়েম প্রত্যয়নপত্রে উল্লেখ রয়েছে মোঃ আসগার হোসেন, পিতা- মৃত শহর আলী গাজী, অনুরূপভাবে ভোটার তালিকায় ৪৭১২২৭২১২৬৫২নং ক্রমিকে দেখা যায় নাম জাহাঙ্গীর হোসেন, পিতা- মোঃ সোহরাব হোসেন আবার বিদ্যুৎ বিলে দেখা যায় নাম আজগর হোসেন, পিতা- শহর আলী। হামলা ও ভিন্ন ভিন্ন নাম প্রসঙ্গে মুঠোফোনে জানতে চাইলে ফোন রিসিভ না করায় অধ্যক্ষ জাহাঙ্গীর হোসেন ওরফে আজগর আলীর কোন মন্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: নিরাপত্তা সতর্কতা!!!