ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে পিছনের দরোজা দিয়ে পালালেন ভুয়া চিকিৎসক : সহকারীর কারাদন্ড

53379786_790034778038181_1111568219451162624_n.jpg

বাগেরহাট প্রতিনিধি, prabartan | প্রকাশিত: ১৭:৫৭, ১৪- ০৩-১৯

বাগেরহাটের ফকিরহাটে মোঃ মিজানুর রহমান নামে এক ভুয়া চিকিৎসকের চেম্বারে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। এ সময় কথিত ওই চিকিৎসক গোপনে কক্ষের পিছনের দরোজা দিয়ে পালিয়ে যায়। পরে চেম্বারে উপস্থিত তার সহকারি মোঃ আরাফাত ফকিরকে (১৯) এক মাসের কারাদন্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত।

বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) দুপুরে উপজেলার কাটাখালি বাজারের মাসুম মার্কেটে ওই ভুয়া চিকিৎসকের চেম্বারে অভিযান পরিচালনা করেন ফকিরহাট উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট রহিমা সুলতানা বুশরা।

স্থানীয় লোকজন জানায়, মিজানুরের চেম্বারে ভ্রাম্যমান আদালতের লোকজন গেলে মিজানুর রহমান পিছনের দরোজা দিয়ে পালিয়ে যায়। দৈনিক প্রবর্তন পত্রিকায় কথিত ওই ডাক্তারের বিরুদ্ধে ‘চিকিৎসক না প্রতারক’ শিরোনামে ১১ মার্চ সংবাদ প্রকাশের পর তিনি গা ঢাকা দেন। বৃহস্পতিবার সকালে চেম্বারে আসলে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান পরিচালিত হয়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তিনি কক্ষের পিছনের দরোজা দিয়ে পালিয়ে যান।

ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক রহিমা সুলতানা বুশরা বলেন, কাটাখালি বাজারে একটি ওষুধের চেম্বারের আড়ালে কোন চিকিৎসা সনদ ছাড়াই চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছিলেন মিজানুর নামে এক চিকিৎসক। এমন খবরের ভিত্তিতে তার চেম্বারে অভিযান চালানো হয়। চেম্বারে অবস্থানরত লোকদের কাছে চিকিৎসক মিজানুর রহমান সম্পর্কে জানতে চাইলে, কথা-বার্তার এক পর্যায়ে মিজানুর রহমান পালিয়ে যায়। তথ্য গোপনের অভিযোগে ভুয়া চিকিৎসক মিজানুরের সহযোগী মোঃ আরাফাত ফকিরকে পেনাল কোডের ১৮৭ ধারায় এক মাসের কারাদন্ড দেয়া হয়েছে।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top