কফির তুলনায় চায়ে ক্যাফেইন অনেক কম থাকে

-তুলনায়-চায়ে-ক্যাফেইন-অনেক-কম-থাকে.jpg

ডেস্ক রিপোর্ট, prabartan | প্রকাশিত: ১৯:৪৫, ০৫-০৩-১৯

সারা বিশ্বে চা ও কফি দুটোই পানীয় হিসেবে দারুণ জনপ্রিয়। সাধারণত একজন মানুষের পছন্দ হতে পারে চা অথবা কফি। একজন মানুষ দুটো পানীয়ই সমান পছন্দ করেন, এমনটা সাধারণত হয় না! যারা কফি পছন্দ করেন, তারা সাধারণত চা দেখলেই নাক সিটকে ফেলেন। কিন্তু কফি পান করা বাদ দিয়ে চা পান শুরু করলে কিন্তু বেশ কয়েকটি উপকারিতা পাওয়া যায়।

উপকারিতাগুলো-

১) কোলেস্টেরল কমবে:

কিছু কফিতে থাকে ক্যাফেস্টল বা কাহওয়েওল নামের উপাদান যা শরীরে ‘খারাপ’ এলডিএল কোলেস্টেরলের পরিমাণ বাড়ায়, এমনকি এর কারণে হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের ঝুঁকি বেড়ে যায়। তাই চা পান করলে কোলেস্টেরল কমতে পারে।

২) আপনার দাঁত সাদা হয়ে আসবে:

নিয়মিত কফি পান করলে দাঁত হলদেটে হয়ে যায়। চা পান করলে এই হলদেটে ভাব কমে আসবে। দুধ চা নয়, বরং রঙ চা এমনকি গ্রিন টি পান করলে এই উপকারিতা বেশি পাবেন আপনি।

৩) পেশির সমস্যা দূর হবে:

বেশি কফি পান করলে শরীরে ম্যাগনেসিয়ামের অভাব দেখা দিতে পারে। এ থেকে মাসল ক্র্যাম্প বা পেশিতে টান লাগা ও ব্যথার মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে। কফির বদলে চা পান করলে এ সমস্যাটি হবে না।

৪) বুক জ্বালাপোড়া কমবে:

কফি পান করলে ইসোফ্যাগাস (খাদ্যনালীর একটি অংশ) এবং পাকস্থলীর মাঝের পেশী শিথিল হয়, ফলে পেটের এসিড উঠে এসে বুক জ্বালাপোড়া সৃষ্টি করতে পারে। ডিক্যাফ কফি পান করলেও এ সমস্যাটি হয়। চা পান করলে এমন কোনো সমস্যা হয় না।

৫) ঘুম ভালো হবে:

কফির তুলনায় চায়ে ক্যাফেইন অনেক কম থাকে। তাই চা পান করলে রাত্রে ঘুমের সমস্যা কমে আসবে।

৬) ক্যানসারের ঝুঁকি কমে:

কফি পান করলে লিভার ও কোলন ক্যানসারের ঝুঁকি কমে। কিন্তু চা পান করলে লিভার, কোলন, স্টমাক, প্যানক্রিয়াস, ব্রেস্ট এবং অন্যান্য ক্যানসারের ঝুঁকিও কমে বলে দেখা গেছে। গ্রিন টি পান করলে এই সুবিধা বেশি পাওয়া যায়। তবে চায়ের চেয়ে কফিও কিছু কিছু কাজে উপকারী। যেমন কফি পান করলে টাইপ ২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমে। এ ছাড়া কফি পান ছেড়ে দিলে প্রথম কিছুদিন মাথাব্যথা হতে পারে।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top