করর্পোরেট জগতে নিজেকে উপস্থাপন করতে লিংকডইন

-জগতে-নিজেকে-উপস্থাপন-করতে-লিংকডইন.jpg

করর্পোরেট জগতে নিজেকে উপস্থাপন করতে লিংকডইন

ডেস্ক রিপোর্ট, prabartan | প্রকাশিত: ১৯:৫২, ০৩-০৩-১৯

আজকাল অনেক প্রতিষ্ঠান লিংকডইন প্রোফাইল দেখে চাকরিপ্রার্থীর মান যাচাই করে প্রার্থীর দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা সম্পর্কে ধারণা পেতে চেষ্টা করে। তাই লিংকডইন ব্যবহারের ক্ষেত্রে বিশেষ কিছু আদবকেতা না মানলেই নয়। এ সম্পর্কে লিংকডইন ডট কমে কিছু পরামর্শ দিয়েছেন লিংকডইন বিশেষজ্ঞ সেসিলে জেমেট।

আপনার নিজের ছবিই আপলোড করুন আপনার প্রোফাইলে। কারণ কোনো প্রতিষ্ঠানপ্রধান যখন আপনাকে চাকরি দিতে চাইবেন, তখন তিনি আপনার সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চাইবেন। সেখানে আপনার ‘আউটলুক’ একটি বড় বিষয়। এ ছাড়া আপনি যদি নিজের ছবি না দিয়ে অপ্রাসঙ্গিক অন্য ছবি ব্যবহার করেন, তাহলে অনেকেই ভাববেন, এটি মিথ্যা অ্যাকাউন্ট। এমনকি কয়েকজন যদি আপনার প্রোফাইলকে ‘ফেইক’ হিসেবে রিপোর্ট করেন, লিংকডইন আপনার প্রোফাইল বাজেয়াপ্তও করতে পারে। এ ধরনের কিছু হলে ভবিষ্যতে যেকোনো বড় প্রতিষ্ঠানে আবেদনের ক্ষেত্রে আপনার ভাবমূর্তি নষ্ট হবে। প্রোফাইলে নিজের অস্পষ্ট ছবি দেওয়া থেকে বিরত থাকুন।

জানান দেওয়া বন্ধ করুন

আপনার প্রোফাইলের যেকোনো তথ্য হালনাগাদ করলেই যেন বারবার আপনার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তির কাছে নোটিফিকেশন না যায়। আপনি সামান্য কোনো তথ্যের পরিবর্তন করলেই লিংকডইন স্বয়ংক্রিয়ভাবে সেটা সবাইকে জানিয়ে দেবে। এ কারণে কেউ বিরক্ত হতে পারে। সেটিংস বদলে নিয়ে আপনি এই সমস্যা থেকে রেহাই পেতে পারেন। কোনো তথ্য আপডেটের ক্ষেত্রে শুধু প্রথমবারই সবাইকে জানতে দিন। বারবার কাউকে বিরক্ত করা ঠিক হবে না।

কথা বলুন বিষয় বুঝে

আপনার কাজের সঙ্গে মেলে না, এমন বিষয় প্রোফাইলে শেয়ার করা থেকে বিরত থাকুন। কোনো মজার বা ব্যক্তিগত ভিডিও, কাজের বাইরের কোনো বিষয় সেখানে তুলে ধরবেন না। কারণ, যখন কোনো প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা আপনার প্রোফাইল দেখবেন, তখন তিনি আপনার কাজের বিষয়ে জানতে চাইবেন, আপনার প্রাত্যহিক জীবন সম্পর্কে নয়। এ ছাড়া লিংকডইনে পরিচিত কাউকে ব্যক্তিগত মেসেজ করবেন না। একান্ত প্রয়োজনে অন্য কোনো মাধ্যম ব্যবহার করুন।

বেছে নিন আপনার দুনিয়া

আপনার প্রোফাইলে আপনি কোন ধরনের পেশার মানুষ রাখতে চান, সেটা ঠিক করে দিন। এর ফলে আপনি সহজেই আপনার কাজের সঙ্গে মেলে, এমন মানুষের সঙ্গে পরিচিত হতে পারবেন। এ ছাড়া কাউকে ‘কানেকশন রিকোয়েস্ট’ (যুক্ত হওয়ার অনুরোধ) দেওয়ার সময় তাঁকে একটি নির্ধারিত বার্তা পাঠাতে হয়। যেখানে আপনি কেন তাঁর সঙ্গে যুক্ত হতে চান, সেটি সংক্ষেপে লিখতে হয়। বার্তাটি সবার ক্ষেত্রে একই রকম না পাঠিয়ে ব্যক্তিভেদে আলাদা বার্তা পাঠান, যা আপনাকে আপনার প্রয়োজনীয় মানুষের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার সম্ভাবনা আরও বাড়িয়ে দেবে।

যুক্ত হওয়ার অনুরোধ পাঠানো এবং অনুরোধ গ্রহণ করা—করপোরেট আদবকেতা অনুযায়ী এটুকুই যথেষ্ট নয়। বরং কেউ আপনার অনুরোধ গ্রহণ করলে তাঁকে সংক্ষেপে একটি স্বাগত বার্তা পাঠান। আলাপ যদি এগোয়, তাহলে ধীরে ধীরে তাঁর সঙ্গে কেন যোগাযোগ করেছেন, সেটি বলুন। প্রয়োজনে আপনার কাজের কিছু নমুনাও পাঠাতে পারেন। সংকোচ না করে আপনার দৃষ্টিভঙ্গি তাঁর কাছে তুলে ধরুন।

 

উত্তর দিন সময়মতো

অনেকে কোনো বার্তার উত্তর পাঠাতে বেশ দেরি করেন। হয়তো ভাবেন, পরে সময় পেলে উত্তর দেবেন। এই সময়টা যেন ২ দিনের বেশি না হয়। যতটা দ্রুত সম্ভব বার্তার উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করুন। হয়তো এই বার্তাতেই আপনি কোনো কাজের সুযোগ পেয়ে যেতে পারেন। তাই এ বিষয়ে অসচেতন হওয়া ঠিক হবে না।

প্রশংসা করুন সবার

আপনার আশপাশে কেউ ভালো কাজ করলে তাঁর প্রশংসা করুন। লিংকডইনে এ বিষয়টিকে বলা হয় ‘রিকমেন্ডেশন’। আপনার সঙ্গে সংযুক্ত কারও থেকে কোনো সেবা নিলে তাকে রিকমেন্ডেশন দিন। এ ক্ষেত্রে সংকোচ বোধ করার কিছু নেই। প্রয়োজনে আপনার খুব পরিচিত সংযুক্ত ব্যক্তিদের কাছে রিকমেন্ডেশন চাইতেও পারেন। তবে সংযুক্ত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই এমন আচরণ করা থেকে বিরত থাকুন।

সেরাদের সঙ্গে থাকুন

আপনার সংযুক্ত তালিকার কেউ কোনো কাজে সফল হয়েছেন? তিনি তাঁর কাজের বিষয়ে টাইমলাইনে পোস্ট করলে তাঁকে অভিনন্দন জানান। আপনার পছন্দের ক্ষেত্রটিতে যাঁরা কাজ করছেন, তাঁদের আপনার কাজ সম্পর্কে জানান দিন। আপনিও যে তাঁর কাজ সম্পর্কে জানেন এবং এই বিষয় নিয়েই আপনি কাজ করতে আগ্রহী, আপনাদের পছন্দের বিষয়টি এক, সেটা বোঝাতে চেষ্টা করুন। সেরাদের সেরা কাজগুলো সম্পর্কে সব সময় জানুন।

সুযোগ দিন অন্যদেরও

আপনি কাদের সঙ্গে সংযুক্ত হয়েছেন, তাঁদের তালিকা যেন অন্যরা দেখতে পারে, সে বিষয়টি নিশ্চিত করুন। এভাবে আপনি হয়তো কারও সঙ্গে পরোক্ষভাবে সংযুক্ত, সেটা জানাতে পারবেন, যা আপনার সম্পর্কে অন্যদের ধারণা বদলে দিতে পারে। আপনার সঙ্গে সংযুক্ত মানুষগুলো দেখেই অনেক চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠান আপনার সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা পাবে।

বুঝেশুনে দলে ভিড়ুন

আপনি যেসব বিষয় নিয়ে কাজ করেন, এমন বিষয়ে আগ্রহী গ্রুপে যুক্ত থাকুন। তাহলে সেখানেই আপনার কাজের প্রতিক্রিয়া জানতে পারবেন। অনেক ক্ষেত্রে তাঁদের প্রতিক্রিয়া থেকেই আপনি আপনার কাজের ভালো-মন্দ জেনে সেটা নিয়ে কাজ করতে পারবেন, যা আপনার দক্ষতা বাড়াতে সাহায্য করবে। এ ছাড়া আপনার কাজের বিষয়ে যেকোনো হালনাগাদ তথ্য জানার সুযোগও থাকবে ওই গ্রুপে। ফলে আপনি সব সময় এগিয়ে থাকবেন।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top