সময়ের স্রোতে সবই মুছে গেছে রহস্য ও প্রশ্ন। শ্রীদেবী রয়ে গেলেন শোক আর বেদনার স্মৃতিচারণে

-স্রোতে-সবই-মুছে-গেছে-রহস্য-ও-প্রশ্ন।-শ্রীদেবী-রয়ে-গেলেন-শোক-আর-বেদনার-স্মৃতিচারণে.jpg

ডেস্ক রিপোর্ট, Prabartan | আপডেট: ১৮:৫৫, ২৪-০২-১৯

 

দুবাইয়ের একটি হোটেলের বাথরুমের বাথটাব থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার হয়েছিলো তার মরদেহ। প্রথমে জানানো হয় হার্ট অ্যাটাক করে মৃত্যু। তারপর জানা যায়, মদ্যপ অবস্থায় বাথটাবের পানিতে ডুবে মৃত্যু হয়েছে বলিউডের সুপারস্টার অভিনেত্রী শ্রীদেবীর!

তার অকাল ও রহস্যজনক মৃত্যু নিয়ে অনেক ধোঁয়াশাই তৈরি হয়েছিলো। সেদিন হোটেলের ঘরে শ্রীদেবী সর্বপ্রথম ভাসমান অবস্থায় বাথটবে দেখেন তার স্বামী প্রযোজক বনি কাপুর। তাই অনেক প্রশ্নও উঠে এসেছিলো শ্রীদেবীর স্বামী বনির বিরুদ্ধে।

সন্দেহ হওয়াতে বনি কাপুরকে কয়েক দফায় জিজ্ঞাসাবাদ করেছিলো দুবাইয়ের পুলিশ। শুধু বনি নন, দুবাই পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করেছে অভিনেত্রীর পরিবারের অন্য সদস্য এবং যে হোটেলে শ্রীদেবীর দেহ মিলেছে, সেখানকার কর্মীদেরও।

যে ননদের ছেলের বিয়ে খেতে দুবাই গিয়েছিলেন শ্রীদেবী সেই ননদের পরিবারের সদস্যদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। খতিয়ে দেখা হয়েছিলো শ্রীদেবীর ফোনের কললিস্টও। ভারত থেকে অভিনেত্রীর বিভিন্ন মেডিক্যাল রেকর্ডও চেয়ে পাঠিয়েছিলো দুবাই পুলিশ কর্তৃপক্ষ।

শুধু তাই নয়, শ্রীদেবীকে খুন করা হয়েছে এই অভিযোগ তুলেছিলেন শ্রীদেবীর চাচা বেণুগোপাল রেড্ডি। তিনি সরাসরি আঙুল তুলেছিলেন বনি কাপুরের দিকে।

কিন্তু হঠাৎ করেই বদলে গেল চিত্রপট। দুবাই পুলিশ সব রহস্য ও খুনের গুঞ্জন থামিয়ে শ্রীদেবীর মৃত্যুকে পানিতে ডুবে দুর্ঘটনা বলেই ডেথ সার্টিফিটেক দেয়। তাই একটি স্বাভাবিক মৃত্যুই মেনে নিতে হয়েছে শ্রীদেবীর জন্য।

সময়ের স্রোতে সবই মুছে গেছে রহস্য ও প্রশ্নরা। শ্রীদেবী রয়ে গেলেন শোক আর বেদনার স্মৃতিচারণে। শ্রীদেবী রেখে গেছেন চিরসবুজ আবেদন, তার না থাকার যাতনা। যা চিরদিন বয়ে চলবে তার ভক্তরা, বলিউডের সিনেমা।

আজ সেই দিন, ২৪ ফেব্রুয়ারি; শ্রীদেবীর চলে যাওয়ার দিন। নন্দিত এই অভিনেত্রীর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে তাকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছে তার পরিবার, বন্ধু ও ভক্তরা।

প্রসঙ্গত, ১৯৬৩ সালের ১৩ আগস্ট তামিলনাড়ুতে জন্ম নেওয়া শ্রীদেবী একাধারে তামিল, তেলেগু, মালয়লাম, কান্নাডা ও হিন্দি ছবিতে অভিনয় করেছেন।

বলিউডে শ্রীদেবীর অভিষেক হয় ‘সোলা শাওন’-এর মাধ্যমে ১৯৭৯ সালে। ২০১৩ সালে চলচ্চিত্রে অবদানের জন্য ভারতের চতুর্থ সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় সম্মান পদ্মশ্রী পেয়েছেন তিনি। চাঁদনি, লামহে, মিস্টার ইন্ডিয়া, নাগিনসহ ৯০ দশকের একের পর এক সুপারহিট চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন শ্রীদেবী। মিঠুন চক্রবর্তীর সঙ্গে তার জুটি ছিলো তুমুল জনপ্রিয়। দুজনের প্রেম-বিয়ের মুখরোচক খবরও ছড়ানো আছে বলিউডে।

অভিনয় থেকে অবসর নিয়েছিলেন ১৯৯৬ সালে। পরে ২০১২ সালে ‘ইংলিশ ভিংলিশ’ ছবির মধ্য দিয়ে বলিউডে প্রত্যাবর্তন করেন। সর্বশেষ ২০১৭ সালে মুক্তি পাওয়া ‘মম’ ছবিতে অভিনয় করেছিলেন তিনি।

 

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top