চার জেলায় বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৫

.png

ডেস্ক রিপোর্ট, prabartan | প্রকাশিত: ১৯:৪৯, ২২-০২-১৯

 

কুমিল্লা, ময়মনসিংহ, কক্সবাজার ও খুলনায় বৃহস্পতিবার রাত ও শুক্রবার ভোরে পৃথক বন্দুকযুদ্ধে পাঁচজন নিহত হয়েছেন। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর।

কুমিল্লা: কুমিল্লার তিতাসে বৃহস্পতিবার রাতে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মো. আল-আমিন নামে এক ডাকাত নিহত হয়েছেন। তিতাস উপজেলার ঝড়িকান্দি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এ সময় একটি রিভলবার, একটি এলজি ও ৫ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়। আল-আমিন ওই উপজেলার জিয়ারকান্দি ইউপির নয়াগাঁও গ্রামের মাঈনুদ্দিনের ছেলে।

তিতাস থানার ওসি সৈয়দ মোহাম্মদ আহসানুল ইসলাম বলেন, দাউদকান্দির গৌরীপুর বাজারের রিয়াজ ট্রেডের ৫ জন সেলসম্যান সিএনজি অটোরিকশা যোগে বৃহস্পতিবার সকালে টাকা নিয়ে হোমনা যাচ্ছিল। গৌরীপুর-হোমনা সড়কের দড়িকান্দি সেতু অতিক্রম করার সময় একদল ছিনতাইকারী বিকাশ ডিলারের ৫৮ লাখ টাকা ছিনতাই করে। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় অভিযান চালিয়ে ওই চক্রের ২ সদস্যসহ ১৫ লাখ টাকা আটক করে পুলিশ।

ওসি আরো বলেন, এ ঘটনার পর রাতে আটক আল-আমিনকে সঙ্গে নিয়ে জেলা ডিবি পুলিশ ও তিতাস থানা পুলিশ অবশিষ্ট টাকা উদ্ধারে অভিযানে নামে। রাত সাড়ে ৩টার দিকে তিতাসের দড়িকান্দি এলাকায় পৌঁছালে একদল ডাকাত পুলিশের গাড়িতে হামলা চালিয়ে আল-আমিনকে ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা চালায়। এ সময় পুলিশ আত্মরক্ষার্থে গুলি ছুড়লে ডাকাতদল পালিয়ে যায়। ডাকাতদের একটি গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে আল-আমিনের ওপর পড়ে। আহত অবস্থায় প্রথমে তিতাস উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং পরে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর তিনি মারা যান।

ময়মনসিংহ: ময়মনসিংহে ডিবির সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে আব্দুর রশিদ নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় দুই পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। তাদের পুলিশ লাইন হাসপাতাল চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

পুলিশের দাবি, নিহত রশিদ একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে মাদক, বিস্ফোরকসহ সাতটি মামলা রয়েছে। আব্দুর রশিদ শহরের ত্রিশাল বাসস্ট্যান্ড এলাকার রফিক মিয়ার ছেলে।

পুলিশ বলছে, বৃহস্পতিবার রাতে ময়মনসিংহ শহরের ত্রিশাল বাসস্ট্যান্ড এলাকায় মাদক ব্যবসায়ীরা মাদক কেনাবেচা করছে- এমন সংবাদে সেখানে অভিযান চালায় গোয়েন্দা পুলিশ। উপস্থিতি টের পেয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে মাদক ব্যবসায়ীরা গুলি ছুড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি ছুড়লে মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। এ সময় গুলিবিদ্ধ অবস্থায় রশিদ নামে একজনকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

কক্সবাজার: কক্সবাজারের টেকনাফে শুক্রবার ভোরে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নুরুল আলম নামে এক রোহিঙ্গা ডাকাত নিহত হয়েছেন। টেকনাফের দমদমিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ সময় দুটি বিদেশি পিস্তল, দুটি ম্যাগাজিন ও ১৩ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়।

নুরুল টেকনাফের নয়াপাড়া আনসার ক্যাম্পের অস্ত্র লুট ও আনসার কমান্ডার আলী হোসেন হত্যা মামলার প্রধান আসামি।

কক্সবাজার র‌্যাব-১৫ এর কোম্পানি কমান্ডার মেজর মেহেদী হাসান বলেন, রাতে র‌্যাবের একটি টহল দল টেকনাফ দমদমিয়া এলাকায় কিছু লোককে চ্যালেঞ্জ করলে তারা অতর্কিত র‌্যাবের ওপর গুলিবর্ষণ করে। এ সময় র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। ২৫ থেকে ৩০ মিনিট ধরে চলে দুই পক্ষের গোলাগুলি। এ সময় অন্যরা পালিয়ে গেলেও ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় একজনকে উদ্ধার করা হয়। পরে হাসপাতালে নেয়ার পথে তিনি মারা যায়। পরে র‌্যাব রোহিঙ্গা ডাকাত নুরুল আলমের মরদেহ শনাক্ত করে।

মেজর মেহেদী হাসান বলেন, টেকনাফের নয়াপাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অবস্থিত আনসার ক্যাম্পের অস্ত্র লুট ও আনসার কমান্ডার আলী হোসেনের হত্যা মামলার প্রধান আসামি এই নুরুল। তিনি দীর্ঘদিন পলাতক ছিলেন। নুরুলের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য টেকনাফ থানা পুলিশকে হস্তান্তর করা হয়েছে।

অপরদিকে, কক্সবাজারের টেকনাফের সাবরাং ইউপির কাটাবুনিয়ায় শুক্রবার ভোরে বিজিবির সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় দুই বিজিবি সদস্য আহত হয়েছেন।

নিহত বেল্লাল হোসেন লক্ষ্মীপুরের সাতচর গ্রামের সিরাজুল ইসলাম ছেলে। আহতরা হলেন- মো. আরিফ হোসেন, মো. সিনবাদ হোসেন।

টেকনাফ ২ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আছাদুদ জামান চৌধুরী বলেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বিজিবির চেকপোস্টে বেল্লালকে আটক করা হয়। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে কাটাবুনিয়া দিয়ে ইয়াবার একটি বড় চালান আসার খবর পাওয়া যায়। তাকে নিয়ে নির্দিষ্ট সময়ে উপস্থিত হলে বিজিবির উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা গুলি চালায়। এতে বিজিবি আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছুড়লে ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। এসময় বিল্লালকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। অভিযানে আহত দুই বিজিবি সদস্যকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে বিজিবি হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

টেকনাফ মডেল থানার ওসি (তদন্ত) এবিএমএস দোহা বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহের সুরতহাল তৈরি করে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

খুলনা: খুলনায় পুলিশের সঙ্গে বৃহস্পতিবার রাতে বন্দুকযুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী মাসুদ রানা ওরফে মাসুদ নিহত হয়েছেন। নগরীর নিরালা কবরস্থান সংলগ্ন দীঘির পাড় এলাকায় বন্দুকযুদ্ধের এ ঘটনা ঘটে। এসময় ১টি দেশি পাইপগান, ১টি চাপতি, ১টি বড় ছোরা ও ১০০পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

মাসুদ খুলনা নগরীর সোনাডাঙ্গা থানার বসুপাড়া এলাকার মৃত আব্দুল হকের ছেলে।

কেএমপির উপ-পুলিশ কমিশনার মনিরুজ্জামান মিঠু বলেন, রাতে নিরালা দীঘির পাড় কবরস্থান এলাকায় মাদক উদ্ধারে যায় সদর থানা পুলিশ। এ সময় পুলিশের সঙ্গে মাদক ব্যবসায়ীদের গোলাগুলিতে মাসুদ রানা নিহত হয়। নিহত মাসুদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। তিনি নগরীর কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী। তার নামে থানায় অসংখ্য মামলা রয়েছে।

 

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top