বাগেরহাটে বইতে শুরু করেছে সুশাসনের বাতাস

v-vcbndvcdhbsv-.jpg

বাগেরহাটে বইতে শুরু করেছে সুশাসনের বাতাস

এস এম সামছুর রহমান, বাগেরহাট প্রতিনিধি | আপডেট: ২২:৪০, ১৫-০২-১৯

 

উপকূলীয় জেলা বাগেরহাটের ৪টি সংসদীয় আসন নিয়ে গঠিত। বিগত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অন্য তিনটি আসনে সংসদ সদস্য পরিবর্তন না হলেও বাগেরহাট-২ আসনে নতুন সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। এই আসনের সাবেক সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি আলহাজ¦ এ্যাড. মীর শওকাত আলী বাদশার পরিবর্তে আওয়ামী লীগ মনোনয়ন দেয় বাগেরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য শেখ হেলাল উদ্দীনের ছেলে শেখ তন্ময়কে। বাগেরহাট জেলা আওয়ামী লীগের বড় একটি অংশের দাবী ছিল শেখ তন্ময়কে এই আসনের প্রার্থী করার।

সুদর্শন চেহারা, সুন্দর বক্তৃতা ও ভাল ব্যবহার দিয়ে তিনি বাগেরহাটের সাধারন ভোটারদের মাঝে ব্যপক সাড়া তোলেন। সোস্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে তার এসব গুনাগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। এতে দেশব্যাপী তিনি আলোচনায় চলে আসেন। বিশেষ করে তরুনদের প্রতিনিধি হিসেবে সবার মনে জায়গা করে নেন।
তিনি ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে নানা প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট প্রার্থনা করেন। এসব প্রতিশ্রুতির মধ্যে সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও দলমত নির্বিশেষে সাধারণ মানুষকে শান্তিতে থাকতে দেয়ার কথাটি মানুষের হৃদয়ের মনিকোঠায় আঘাত করে। ফলে শেখ তন্ময় আওয়ামী লীগের প্রার্থীর পরিবর্তে সাধারণ মানুষের প্রার্থীতে পরিনত হন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিপুল ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হন শেখ তন্ময়। নির্বাচনের পরের দিন (৩১ জানুয়ারী) নির্বাচন পরবর্তি সংম্বধনা অনুষ্ঠানে বাগেরহাট-২ আসনের নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য শেখ তন্ময় সকলকে নিয়ে একটি সুন্দর বাগেরহাট গড়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, আমাদের আনন্দ যেন অন্য কারো দুঃখের কারণ না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। এমন কথায় সাধারনের মাঝে ব্যপক সাড়া পড়ে যায়। তার এই ঘোষনা এবং কঠোর অবস্থানের কারনে নির্বাচন পরবর্তি তেমন কোন সহিংসতার ঘটনা বাগেরহাটে ঘটেনি বলে বলে মনে করছেন সচেতন মহল।
এদিকে গত ৯ জানুয়ারী সন্ধায় শেখ তন্ময় বাগেরহাট পৌরসভার আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের সাথে মতবিনিময় করেন। সেখানে সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ ও মাদকসেবীদের সতর্ক করে তিনি বলেছিলেন, মাদক যুব সমাজকে ধংশ করে দেয়। তাই বাগেরহাটে মাদক ব্যবসায়ীদের স্থান আর হবে না।
গত ১০ জানুয়ারী দলীয় কার্যালয়ের সামনে জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যেগে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত হয়। এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বাগেরহাট-২ আসনের নব-নির্বাচিত সংসদ সদস্য শেখ সারহান নাসের তন্ময় বলেন, ‘আমার প্রথম নির্বাচণী প্রতিশ্রুতি, সোনার বাংলা আর আধুনিক বাগেরহাট যদি গড়তে হয়, মাদক, চাঁদাবাজ, দখলমুক্ত বাগেরহাট আগে গড়তে হবে। এজন্য সুশাসন প্রতিষ্ঠা প্রয়োজন। তিনি বলেন, আপনারা যদি আমাকে সুশাসন প্রতিষ্ঠার ব্যবস্থা না করে দেন। আমার শক্তি প্রয়োগ করতে হতে পারে। তিনি আরো বলেছিলেন, জননেতা শেখ হেলাল উদ্দীন আমার নেতা নয়, তিনি আমার শ্রদ্ধেয় পিতা। আমি জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের রাজনীতি করি। এসময় ওই অনুষ্ঠানে জেলা আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। শেখ তন্ময়ের এমন ভাষনে অনেকে আবেগ আপ্লুত হয়ে কেঁদে ফেলেন।

১০ জানুয়ারীর সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত আওয়ামী লীগের তৃর্ণমূল অনেক কর্মী এই প্রতিবেদককে বলেন, এমনই কথা তারা শেখ তন্ময়ের মুখ থেকে আশা করেছিলেন। এবার বুঝি বাগেরহাটে সুশাসনের বাতার বইতে শুরু করছে।

এরপর শেখ তন্ময় বাগেরহাট-২ সংসদীয় আসনের বিভিন্ন ইউনিয়নে গিয়ে নেতাকর্মীদের সাথে মতবিনিময় করেন। এসব অনুষ্ঠানের কোন কোন স্থানে জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি, যুগ্ম-সম্পাদক পর্যায়ের অনেক নেতা শেখ তন্ময়ের কাছে অবৈধ দখলবাজদের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে ব্যবস্থা গ্রহনের আবেদন জনিয়ে বলেন, এবার আমাদের নালিশের জায়গা হয়েছে। এতদিন যারা মুখবুজে সবকিছু মেনে নিয়েছিলো তারা এখন সোচ্চার হবে।

এসব অনুষ্ঠানেও শেখ তন্ময় যেকোন মূল্যে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করবেন বলে দৃঢ়প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

এক অনুষ্ঠানে বাগেরহাট জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারন সম্পাদক সরদার ফখরুল আলম সাহেব বলেন, শেখ তন্ময় বাগেরহাটের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর দৃশ্যপট পরিবর্তন হতে শুরু করেছে। যাদের ভয়ে মানুষ কথা বলতে সাহস পেত না। সেসব নির্যাাতিতরা এখন মুখ খুলে প্রতিবাদ শুরু করছে। মানুষ একটি নালিশের জায়গা খুজে পেয়েছে।

বাগেরহাট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সাবেক সভাপতি সরদার আনসার আলী বলেন, রিক্সা চালকরাও এখন আর এসব মাস্তানদের ভয় পাচ্ছে না। তারা কোন কিছু হলেই তরুন এমপি শেখ তন্ময়ের কাছে যাবে বলে প্রাকাস্যে হুমকী দিচ্ছে।

বাগেরহাট বাসস্টান্ড এলাকা অসীম সাহা বলেন, বাসস্টান্ড থেকে স্ত্রী সন্তানকে নিয়ে ফেরার সময় কিছু দূবৃত্তের হাতে নাজেহাল হয়েছিলেন। অপশক্তির প্রভাবের কারনে সেদিন কাউকে কিছু না বলে মানসম্মান নিয়ে চলে এসেছিলেন। কিন্তু আজ সময় বদলেছে শেখ তন্ময় এমপি হওয়ার পর সেসব ব্যক্তিরা নিজেরাই বদলেগেছে।

একাধিক সুত্র জানায়, শেখ তন্ময় প্রার্থী হওয়ার পর বাগেরহাটে ব্যাটারী চালীত অটোরিক্সার ( ইজি বাইক) উপর ধার্য করা সকল অবৈধ চাঁদা বন্ধের নির্দেশ দেন। এরফলে ইজি বাইক চালকদের কাছে তিনি মহান মানুষ হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন। এদিকে নির্বাচনের পর বাগেরহাট কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের শৃংখলা ফিরিয়ে আনার নির্দেশ দেন। যা তার একদিন পরেই বাস্তবায়ন হয় বলে সংশ্লিষ্ট সুত্র জানায়।

সম্প্রতি শেখ তন্ময় বাগেরহাট শহরের প্রাণকেন্দ্র মিঠাপুকুর পাড় এলাকায় একটি অভিযোগ বাক্স স্থাপন করেন। আর এই অভিযোগ বাক্সের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। যা সাধারণ মানুষের মধ্যে নতুন করে আশার আলো জ্বালিয়েছে। এদিকে বাগেরহাট সদর আসনের সুশাসনের বাতাস অন্য উপজেলাতেও ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে।

তারুণ নেতা শেখ তন্ময় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার আগে ও পরের যে পদক্ষেপ নিয়েছেন তাতে জেলাবাসি নতুন নতুন স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে। বাগেরহাটের উন্নয়নে যেকোন মূল্যে এই ধারা অব্যহত রাখার প্রত্যাসা করেন এলাকার শান্তিপ্রিয় মানুষ।

 

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top