যশোর ও খুলনায় ইউএসএআইডি’র উন্নয়ন কার্যক্রম পরিদর্শন করলেন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল আর মিলার

cxhfvbdhz.jpg

যশোর ও খুলনায় ইউএসএআইডি’র উন্নয়ন কার্যক্রম পরিদর্শন করলেন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল আর মিলার

নিজস্ব প্রতিবেদক, Prabartan | আপডেট: ২৩:০৬, ১৩-০২-১৯

 

বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল আর মিলার বুধবার যশোর ও খুলনায় তার প্রথম সফর শেষ করেছেন। এ সফরে তিনি ইউএসএআইডি’র কৃষি, শ্রম ও খাদ্য সহায়তা বিষয়ক কিছু গুরুত্বপূর্ণ কর্মসূচি পরিদর্শন করেন এবং খুলনা আমেরিকান কর্নারে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন। রাষ্ট্রদূত মিলারের সঙ্গে ছিলেন ইউএসএআইডি’র ডেপুটি মিশন পরিচালক জেইনা সালাহি। রাষ্ট্রদূত ও তাঁর সফরসঙ্গীরা যশোরে সরকারি কর্মকর্তা, কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ ও ইউএসএআইডি’র কর্মসূচিগুলোতে অংশগ্রহণকারীদের সঙ্গে সাক্ষাত করেন। ইউএসএআইডি’র উন্নয়ন কর্মসূচিগুলোর প্রভাব সম্পর্কে সরাসরি মানুষের কাছ থেকে জানাই ছিল তাদের এ সফরের উদ্দেশ্য।

এসব কর্মসূচি কীভাবে কৃষিতে উৎপাদনশীলতা ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি জোরদার করছে যশোরে তা দেখেন রাষ্ট্রদূত। সেখানে ‘জনতা ইঞ্জিনিয়ারিং’ ও ‘দি মেটাল প্রাইভেট লিমিটেড’ এর মতো বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে কাজ করছে ইউএসএআইডি। যুক্তরাষ্ট্র সরকারের প্রতিনিধিদলটি স্থানীয় ফুলচাষীদের সঙ্গে দেখা করেন। নতুন আরও কিছু জাতের ফুলচাষ ও উন্নত কৃষি পদ্ধতির মাধ্যমে তারা উৎপাদন বাড়িয়েছেন। এজন্য ইউএসএআইডির কর্মসূচির আওতায় প্রশিক্ষণ নিয়েছেন ওই ফুলচাষীরা। প্রতিনিধিদলটি স্থানীয় কাপ প্রজাতির মাছের সবচেয়ে উৎপাদনশীল ও শক্তিশালী জাত তৈরির কাজে নিয়োজিত মৎস্যবিজ্ঞানীদের সঙ্গেও সাক্ষাত করেন। এ জাতের মাছ সংশ্লিষ্ট অঞ্চলের খাদ্যনিরাপত্তা এবংঅর্থনৈতিক সম্ভাবনা বাড়াবে।

রাষ্ট্রদূত মিলার ‘ফল আর্মি ওয়ার্ম’ পোকার হুমকির বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউটের (বারি) বিজ্ঞানীদের সঙ্গে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নিয়ে আলোচনা করেন। বাংলাদেশে স¤প্রতি আসা এ পতঙ্গটি বিভিন্ন ধরনের ফসলের ক্ষতি করতে পারে। এ নিয়ে বৈঠকের পর রাষ্ট্রদূত সাংবাদিকদের বলেন, ‘কৃষকদের সচেতন করা এবং পতঙ্গটি দমনের উপায় বের করতে কৃষিমন্ত্রণালয় ও অন্যান্য সংস্থার ব্যাপক কর্মতৎপরতায় আমি সন্তুষ্ট। তাদের গৃহীত কার্যক্রমের মধ্যে রয়েছে কৃষকদের ফল আর্মি ওয়ার্ম দমনে সহায়তা করতে বিশেষ করে পোকামাকড় নিয়ন্ত্রণের উপকরণসহ নতুন পণ্যের নিবন্ধন প্রক্রিয়া দ্রæততর করা।’ ইউএসএআইডির সহায়তাপুষ্ট স্থানীয়‘ওয়ার্কার্স কমিউনিটি সেন্টার’পরিদর্শনের মধ্য দিয়ে রাষ্ট্রদূত মিলারের সফর শেষ হয়। ওয়ার্ল্ডফিশ, এসিডিআই/ভিওসিএ (ভোকা), সিআইএমএম ওয়াইটি (সিমিট) উইনরক ইন্টারন্যাশনাল এবং ওয়ার্ল্ডভিশন বাংলাদেশ ও বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউটের (বারি)সহ অন্যান্য সহযোগীদের সহায়তায় প্রতিনিধিদলটির এ সফরের আয়োজন করা হয়।

যুক্তরাষ্ট্র সরকার তাদের বৈদেশিক উন্নয়ন বিষয়ক সংস্থা ইউএসএআইডি’র মাধ্যমে ১৯৭১ সাল থেকে বাংলাদেশকে উন্নয়ন সহায়তাবাবদ ৭শ কোটি ডলারের বেশি অর্থ দিয়েছে। ২০১৭ সালে সংস্থাটি খাদ্য নিরাপত্তা ও অর্থনৈতিক সুযোগ স¤প্রসারণ, স্বাস্থ্য ও শিক্ষার উন্নয়ন, গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান ও কার্যকলাপ এগিয়ে নেওয়া, পরিবেশ সংরক্ষণ এবং জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলার সামর্থ্য বৃদ্ধি সংক্রান্ত বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে বাংলাদেশের জনগণের জীবনমানের উন্নয়নে দিয়েছে ২১ কোটি ২০ লাখ ডলারের বেশি।

 

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

error: নিরাপত্তা সতর্কতা!!!