নারীর শাশ্বতরূপে টিপের কদর

download.jpg

নারীর শাশ্বতরূপে টিপের কদর

ডেস্ক রিপোর্ট, Prabartan | প্রকাশিত: ২০:১২ পিএম, ১৩-২-১৯

 

বাঙালি নারীর শাশ্বতরূপে টিপের কদর চিরকালের। দুই ভ্রুর মাঝখানে ছোট কিংবা বড় একটা টিপেই যেন খুলে যায় সৌন্দর্যের বাহার। ‘বাঙালির বারো মাসের তেরো উত্সবে টিপ না হলে সাজে পূর্ণতা আসে না। পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে একটা টিপ তাই পরতেই হয়। একমাথা ঢেউ খেলানো চুলের মাঝবরাবর সিঁথি। পেছনে টেনে বাঁধা খোঁপা। নকশিপাড়ের শাড়ি, ফ্রিল দেওয়া ব্লাউজ, চোখে কাজল আর কপালের মধ্যিখানে একটা একরঙা গোল টিপ। ব্যস, আভিজাত্য নিয়ে বইয়ের পাতা থেকে বেরিয়ে আসেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের লাবণ্য কিংবা সুচরিতা। সে সময়ের রবীন্দ্রকন্যাদের সাজের ধারায় আজ পরিবর্তন এলেও টিপের মহিমা একালের জনপ্রিয়।

বাঙালি কন্যাদের কপালে টিপ আজও ভাস্বর যেকোনো উত্সব-অনুষ্ঠানে শাড়ি, কামিজ কিংবা টপ-জিনসের প্যান্টেও।টিপ বাঙালিয়ানার একটা অংশ হিসেবে নারী-শাড়ির সঙ্গে সবটা জুড়ে থাকে, তাই টিপ না পরলে ভালোই লাগে না। মনে হয় কী যেন নেই, কী যেন নেই।’

বসন্তরাঙা টিপসাজের ধরনধারণ মেনে টিপেও এসেছে নানান রকম নকশা। লাল, নীল, সবুজ, হলুদ, কালো, মেরুন-আরও কত রং রোজ ফুটে উঠছে কপালের মাঝখানে। আধুনিক সময়ের হাত ধরে তাই এই টিপেও এসেছে নতুনত্ব। টিপের একরত্তি গায়ে ফুটে উঠেছে নানান নকশা। আলপনা, জ্যামিতিক নকশার বাইরেও একটু ভিন্ন নকশায় আঁকা হচ্ছে মাছ, ফুল, কল্কে, ফড়িং, হাতি, লতাপাতা, পাখির অবয়ব। আবার জরি, পুঁতি, পাথরের কাজের টিপও নতুন আঙ্গিকে ফিরে আসছে সাজের অনুষঙ্গে। সেকালের মখমলের গোল টিপের আকারেও এসেছে ভিন্নতা কোনোটা লম্বাটে, চৌকোনা, ত্রিকোন, ওভাল, ওপরে গোল নিচের অংশে চিকন যেন পানির ফোঁটা পড়ছে এমন। টিপের ওপর ধাতবের নকশা করা পশুপাখিও দেখা যাচ্ছে। তরুণীদের কাছে এ ধরনের টিপের একটা বাড়তি কদর রয়েছে।

কপালের ধরন আর ব্যক্তিত্বের সঙ্গে যায় এমন আকার বেছে খোলা চুল বা বাঁধা শাড়ি কিংবা জিনস-একটা টিপেই উত্সব উপলক্ষের বাইরেও বেশ মানিয়ে যায় মায়াময় মুখখানি।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top