যেকোনো মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর

cvhgbjer.jpg

যেকোনো মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর

ডেস্ক রিপোর্ট, Prabartan | প্রকাশিত: ৫:১৭, ৫-২-১৯

 

যেকোনো মামলা দ্রুত নিষ্পত্তিতে পুলিশকে বিশেষ নজর দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, কোনোক্রমেই যেন মামলা দীর্ঘ না হয়। এতে জনগণের ভোগান্তি বাড়ে। অনেক সময় মামলা তদন্তে দীর্ঘ সময় লেগে যায়। মামলা দ্রুত নিষ্পত্তিতে বিশেষ নজর দিলে জনগণ উপকৃত হবে।

মঙ্গলবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে শাপলা হলে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে দেয়া বক্তব্যে তিনি এই আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, অনেক সময় দেখা যায়, এফআইআর করে ফেলে রাখা হয়েছে। সেইগুলোকে চার্জশিট দেয়া, স্বাক্ষী নিয়ে আসা, মামলাগুলো সচল রাখা। এসব কিন্তু হচ্ছে না, ঠিকমতো। আর কোর্টে গেলেও সেটা বছরের পর বছর আটকে থাকে। সেখানে আবার আইনজীবী লাগে। অথবা সরকার পক্ষ থেকেও লোক লাগে। এই বিষয়গুলোর জন্য আমার মনে হয় একটা আলাদা ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন। কিভাবে মামলাগুলো যথাযথভাবে চলবে এবং সময়মতো মামলাগুলো সম্পন্ন হবে, সেই দিকে বিশেষভাবে দৃষ্টি দেয়া প্রয়োজন।

জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাস এটা কিন্তু বাংলাদেশের একার না এটা সারা বিশ্বব্যাপী সমস্যা। কিন্তু আমাদের দেশে জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণ করতে পেরেছি। কিন্তু এটা আমাদের অব্যাহত রাখতে হবে বলেও মনে করেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি আরো বলেন, আপনারা ঠিক বলেছেন, আমাদের একটা স্ট্রাটেজি থাকতে হবে, কিভাবে, কখন কোন জায়গা থেকে এই জঙ্গিবাদ আমাদের উপরে হামলা করতে পারে, এরকম সম্ভাবনা আছে কি না? একদিকে গোয়েন্দা নজরদারিও যেমন বাড়াতে হবে, পাশাপাশি এধরনের একটা স্ট্রাটেজি নিয়েই সবসময় আমাদের আরো ট্রেনিং এবং প্রস্তুত থাকা দরকার।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আর এখনকার দিনে ক্রাইমটা এসে গেছে সাইবার ক্রাইম। এরইমধ্যে সাইবার ক্রাইম নিয়ন্ত্রণের আইনও করে দিয়েছি। যেটা নিয়ে বেশ হইচই, অনেকে সেটার বিরুদ্ধে কথা বলে কিন্তু বাস্তবতা হলো, এই আইনটা একান্তভাবে করা হয়েছে মানুষের নিরাপত্তা দেয়ার জন্য। যারা নিরীহ সাধারণ জনগোষ্ঠীর তাদের যে মানবাধিকার রয়েছে সেটা সংরক্ষিত করবার জন্যই এই আইনটা আমরা করেছি। এটা মানুষের অধিকার রক্ষা, মানুষের জীবনমান বাঁচানোর জন্যই করা। তাই পুলিশ বাহিনীকে এসব তদন্ত করে সঙ্গে সঙ্গে জড়িতদের শনাক্ত, গ্রেফতার এবং তাদের বিরুদ্ধে মামলা করতে হবে।

এছাড়াও, সারাদেশে বিভিন্ন প্রয়োজনে প্রত্যেকটি এলাকায় বিশেষায়িত পুলিশ ইউনিট করে দেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।
সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে তাৎক্ষনিক দ্রুত অ্যাকশনে যাওয়ার সক্ষমতা অর্জনসহ এর উপর বিশেষায়িত প্রশিক্ষণ বেশি বেশি প্রয়োজনের উপর গুরুত্ব দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

 

বাংলাদেশ সময়: ১৭১৭, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

এএস

 

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top