খুলনার স্কুলছাত্রী গণধর্ষণ মামলার তিন আসামী ঢাকা থেকে গ্রেফতার

khula-3-arrest-pic-2.jpg

খুলনায় গণধর্ষণ মামলায় গ্রেফতার ৩

ডেস্ক রিপোর্ট, Prabartan | আপডেট: ৯:২৬, ৩১-০১-১৯

খুলনা মহানগরীর খানজাহান আলী থানাধীন আলিম সিটি গেটস্থ আটরা রেললাইন কলাবাগান এলাকায় পরিত্যক্ত ভবনের ছাদে এসএসসি পরীক্ষার্থী (১৬) গণধর্ষণ মামলায় তিন ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মামলা দায়েরের ২৪ ঘন্টার ভিতরেই খানজাহান আলী থানা পুলিশ ঢাকার বাড্ডা কুড়িল বিশ্বরোড এলাকায় অভিযান চালিয়ে বৃহস্পতিবার ভোর রাতে তাদের গ্রেফতার করে। কেএমপি’র ভারপ্রাপ্ত কমিশনার সরদার রকিবুল ইসলামের নিবিড় তত্ত্বাবধায়নে ও নির্দেশনায় অভিযানটি পরিচালিত হয়।

গ্রেফতারকৃত তিন আসামি।

গ্রেফতারকৃতরা হলো, খানজাহান আলী থানার আটরা এলাকার মৃত আমজাদ শিকদারের পুত্র মো. সাগর আলী (২৬), মসিয়ালী এলাকার মৃত রেনু মিয়ার পুত্র মো. বিল্লাল (৩০) ও মসিয়ালী ১ নং ওয়ার্ড এলাকার মৃত টোকন আলীর পুত্র মো: শফিক (২৬)

আরো পড়ুন>>: বান্ধবীকে দিনে মোটরসাইকেলে ঘুরিয়ে রাতে তিন বন্ধু মিলে গণধর্ষণ

খানজাহান আলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলাম জানান, ঘটনার পর তিন আসামিই খুলনা ছেড়ে পালিয়ে যায়। পুলিশের অনুসন্ধানে সুনিদিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে ও বিশেষ তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে আসামি মো. বিল্লালের রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোড এলাকার পোষ্ট অফিস গলির অবস্থান নিশ্চিত হয়ে অভিযান চালানো হয়। বিল্লালকে আটকের পর তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী অপর দুই আসামি সাগর আলী ও মো. শফিককে গ্রেফতার করা হয়। তিনি আরো জানান, কেএমপির ভারপ্রাপ্ত কমিশনার সরদার রকিবুল ইসলামের নিবিড় তত্ত্বাবধায়ন ও নির্দেশনায় সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার (দৌলতপুর জোন) শেখ ইমরানের নেতৃত্বে তিনিসহ (খানজাহান আলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা) বিশেষ টিম অভিযানটি পরিচালিত হয়।

খানজাহান আলী থানার ওসি তদন্ত মোঃ কবির হোসেন জানান, দুপুরে থানায় আনার পর গ্রেফতারকৃতরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে। আজ শুক্রবার (১ ফেব্রুয়ারি) তাদেরকে আদালতে প্রেরণ করে ১৬৪ ধারায় জবাবন্দি রেকর্ড করা হবে। এদিকে, কিশোরীটি গতকাল আদালতে তার জবানবন্দি দিয়েছে। আটককৃত সাগর পেশায় একজন দিন মুজুর, বেল্লাল ঢাকার গণপরিবহনের একজন চালক এবং শফিক পেশায় দিন মুজুর ।

আরো পড়ুন>>: ধর্ষণ কি এভাবে চলতেই থাকবে?

প্রসঙ্গত, গ্রেফতারকৃত সাগর ২৮ জানুয়ারি ওই এসএসসি পরীক্ষার্থীকে কৌশলে মটরসাইকেলে তুলে নিয়ে তার ভাবীর বাড়ী ফুলতলা উপজেলার দামোদরে নিয়ে যায়। সেখানে দুপুরের খাবারের পর বিভিন্ন জায়গায় ঘুরিয়ে সন্ধ্যার দিকে আলিম সিটিগেট রেললাইন মিজানের পরিত্যক্ত ভবনের ছাদে নিয়ে অপর দুই বন্ধু শফিক ও বিল্লালকে নিয়ে গণধর্ষণ করে। আশংকাজনক অবস্থায় তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে (ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার) ভর্তি করা হয়। ওই ঘটনায় ওই ছাত্রীর পিতা বাদি হয়ে ২৯ জানুয়ারি রাত ৯ টায় খানজাহান আলী থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলায় গ্রেফতারকৃত তিনজনকে আসামি করা হয়।

 

বাংলাদেশ সময়: ২১২৪, ৩১ জানুয়ারি ২০১৯

ডেস্ক/এএস

 

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top