খুলনা মহানগরীতে কোনো প্রকার অপরাধমূলক কর্মকান্ড বরদাশত করা হবে না

50924353_2254790738132426_2818905251044655104_o.jpg

সোনাডাঙ্গা মডেল থানার আয়োজনে পুলিম সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন পুলিশ কমিশনার (ভারপ্রাপ্ত) সরদার রফিকুল ইসলাম

নিজস্ব প্রতিবেদক, Prabartan | আপডেট: ৬:৪১ পিএম, ৩০-০১-১৯

খুলনা মহানগরী এলাকায় সন্ত্রাস-মাদক-চাদাঁবাজিসহ কোনো প্রকার অপরাধমূলক কর্মকান্ড বরদাশত করা হবে না। অপরাধী যেই হোক, তাকে আইনের আওতায় আনা হবে। আইন শৃংখলা রক্ষায় যেমন পুলিশের ভূমিকা রয়েছে, তেমনি এ কাজে জনসাধারণের প্রত্যক্ষ সম্পৃক্ততা প্রয়োজন রয়েছে। আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি সামাজিকভাবেও অপরাধ প্রতিরোধ করতে হবে। মাদকের বিরুদ্ধে কেএমপি’র জিহাদ অব্যাহত থাকবে।

সোনাডাঙ্গা মডেল থানার আয়োজনে পুলিম সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করছেন পুলিশ কমিশনার (ভারপ্রাপ্ত) সরদার রফিকুল ইসলাম। ছবি: নাজমুল হক পাপ্পু।

পুলিশ সেবা সপ্তাহ” ২০১৯ উদযাপনের ধারাবাহিকতায় বুধবার বেলা ১১ টায় কেএমপি’র সোনাডাঙ্গা থানায় “বিশেষ ওপেন হাউজ ডে” অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেএমপি’র পুলিশ কমিশনার (ভারপ্রাপ্ত) সরদার রকিবুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডিসি (দক্ষিণ) মোহাম্মদ এহ্সান শাহ্। অনুষ্ঠানে কেএমপি’র অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ, খুলনা প্রেস ক্লাবের সভাপতি, স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরবৃন্দ, কমিউনিটি পুলিশিং এর সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও অন্যান্য সদস্যবৃন্দ, ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিক এবং সর্বস্তরের নাগরিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠানে কেএমপির ভারপ্রাপ্ত কমিশনার সরদার রকিবুল ইসলাম, ‘‘খুলনায় পুলিশের সাম্প্রতিক সফলতার উপর আলোকপাত করে বলেন, যত্রতত্র নগরীতে পটকাবাজি একটি আতংকে রুপ নিয়েছিল। পুলিশ এর বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছে। সম্প্রতি কোনোভাবেই মাদক নিয়ন্ত্রন করা সম্ভব হচ্ছিল না। গত একমাসে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। উদ্ধার করা হয়েছে বিপুল পরিমান মাদক দ্রব্য। এ অভিযান চলমান রয়েছে। মাদকের বিরুদ্ধে আমি জিহাদ ঘোষণা করেছি। আমার এ জিহাদ অব্যহত থাকবে। সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারে এ মুহুর্তে সাড়াঁশি অভিযান চলছে সমগ্র শহরজুড়ে। এখন খুলনা মহানগরী অনেকটাই স্বস্তিদায়ক নগরীতে পরিণত হয়েছে। ইনশাল্লাহ, পুলিশ ও সাধারণ জনগণ মিলে, আমরা সমগ্র নগরীর চিত্র বদলে দেবো।’’ তিনি হুশিঁয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, ‘খুলনা শহরে কোনো মাদক ব্যবসায়ী-সন্ত্রাসী-চাদঁবাজ-খুনী-ছিনতাইকারীর জায়গা হবে না।

 

বাংলাদেশ সময়: ১৮৪১, ৩০ জানুয়ারি ২০১৯

ডিএমআর/এএস

 

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top