বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জেও পররাষ্ট্রনীতিতে অটল থাকার বার্তা

sha-20230124193531.webp

ডেস্ক রিপোর্ট : জাতীয়তাবাদ, সমাজতন্ত্র, গণতন্ত্র ও ধর্মনিরপেক্ষতার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ কখনো আপস করবে না বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম। পাশাপাশি বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে যাই ঘটুক না কেন, নিজেদের পররাষ্ট্রনীতিতে অটল থাকারও বার্তা দিয়েছেন তিনি।

মঙ্গলবার রাজধানীর ইস্কাটনে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ (বিআইআইএসএস) মিলনায়তনে ‘বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে প্রতিবেশীর সঙ্গে বাংলাদেশের বৈদেশিক সম্পর্ক’ শীর্ষক এক সেমিনারে এসব কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী।

শাহরিয়ার আলম বলেন, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি হচ্ছে, ‘সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়’। বৈশ্বিক পরিস্থিতি যে দিকেই যাক না কেন, আমাদের এই অবস্থান অক্ষত থাকবে। তাছাড়া জাতীয়তাবাদ, সমাজতন্ত্র, গণতন্ত্র ও ধর্মনিরপেক্ষতার ক্ষেত্রেও বাংলাদেশ কখনো আপস করবে না। এসব অক্ষত রেখে বাংলাদেশ তার নিজস্ব সম্পদকে অব্যাহতভাবে কাজে লাগাবে।

বাংলাদেশকে আদর্শ প্রতিবেশী হিসেবে আখ্যা দিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, পৃথিবীর প্রতিটি দেশই ভালো প্রতিবেশীর প্রত্যাশা করে। ভালো প্রতিবেশীর উদাহরণ দিতে গেলে বাংলাদেশকে নিতে হবে। বাংলাদেশ ভালো প্রতিবেশী হিসেবে তার অন্য প্রতিবেশীর সঙ্গে সম্পর্ক সম্প্রসারণ অব্যাহত রাখবে। আশা করি, আমাদের প্রতিবেশীরা সেটার যথাযথ মূল্যায়ন করতে সক্ষম হবে।

শাহরিয়ার আলম বলেন, বিশ্ব যখন কঠিন পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, তখন প্রতিবেশীর গুরুত্ব খুব বেশি প্রাসঙ্গিক। বাংলাদেশ সরকার আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা ও সমৃদ্ধি এবং পারস্পরিক উন্নয়নের জন্য প্রতিবেশীদের সঙ্গে সম্পর্ক সুসংহত করতে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে।

প্রতিবেশী নীতির ক্ষেত্রে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে গেম চেঞ্জার হিসেবে আখ্যা দেন প্রতিমন্ত্রী। তিনি ১৫ বছর আগের ট্রানজিট ইস্যু নিয়ে হওয়া রাজনীতির প্রসঙ্গ টেনে বলেন, ১৫ বছর আগে ট্রানজিট ইস্যু নিয়ে বাংলাদেশে সস্তা রাজনীতি হয়েছে। শেখ হাসিনা তার রাজনৈতিক ক্যারিয়ার ঝুঁকির মধ্যে রেখে ট্রানজিট করেছিলেন। যেটার সুফল আমরা এখন পাচ্ছি। যারা বিষয়টি নিয়ে সস্তা রাজনীতি করেছে তারা কিন্তু বেশি দূর এগোতে পারেনি।

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজ (বিআইআইএসএস) এ সেমিনারের আয়োজন করে। এতে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ এন্টারপ্রাইজ ইনস্টিটিউটের সভাপতি রাষ্ট্রদূত এম হুমায়ুন কবির। স্বাগত বক্তব্য দেন বিআইআইএসএসের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল শেখ পাশা হাবিব উদ্দিন।

আরও পড়ুন : র‌্যাবের প্রশংসা করলেও নিষেধাজ্ঞা তোলার বার্তা নেই যুক্তরাষ্ট্রের

এছাড়া পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দক্ষিণ এশিয়া অনুবিভাগের মহাপরিচালক রকিবুল হক, অধ্যাপক ড. লাইলাফুর ইয়াসমিন, বিআইআইএসএসের গবেষণা পরিচালক ড. মাহফুজ কবির ও সিনিয়র রিসার্চ ফেলো এম আশিক রহমান বক্তব্য রাখেন।

জ্বালানি প্রসঙ্গে শাহরিয়ার আলম বলেন, বাংলাদেশ তার নিজস্ব সম্পদ কাজে লাগাচ্ছে। জ্বালানি সম্পদের কথা উঠলে বলতে হয়, আমাদের হাইড্রো রিসোর্স নেই। আমরা প্রতিবেশী দেশের কাছ থেকে জ্বালানি সহযোগিতা নিতে চাই। এক্ষেত্রে আমরা ভারত ছাড়াও নেপাল ও ভুটান থেকেও সহযোগিতা নিচ্ছি।

রাষ্ট্রদূত হুমায়ুন কবির বলেন, পরিবর্তিত বৈশ্বিক ব্যবস্থায় বিশ্বের অনেক দেশ প্রতিবেশীর সঙ্গে সম্পর্ক রক্ষার ক্ষেত্রে কঠিন সময় পার করছে। বাংলাদেশ ভারতের প্রকৃত বন্ধু। সেই বন্ধুত্বের মর্যাদা কিন্তু ভারতের দেওয়া উচিত।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top