মূলধন বাড়ল ২৩৮ কোটি টাকা

dhaka-stock-exchange-and-chitagong-20220122125724.jpg

ডেস্ক রিপোর্ট : সূচকের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতায় নতুন বছরের তৃতীয় সপ্তাহ পার করল দেশের পুঁজিবাজার। বিদায়ী এ সপ্তাহে অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ারের দাম, সূচক ও লেনদেন বেড়েছে। তাতে নতুন করে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বিনিয়োগকারীদের পুঁজি (অর্থাৎ বাজার মূলধন) ফিরেছে ২৩৮ কোটি টাকা। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) লেনদেনেও একই অবস্থা দেখা গেছে।

ডিএসইর তথ্য মতে, সপ্তাহজুড়ে (১৬-২০ জানুয়ারি) ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩৯০টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের মধ্যে দাম বেড়েছে ২২৪টির, কমেছে ১৩৯টির, আর অপরিবর্তিত রয়েছে ২৩টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম। আর লেনদেন হয়নি চারটি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার।

বেশির ভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম বাড়ায় ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৮৮ দশমিক ৪৬ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭ হাজার ১০৫ দশমিক ৬৯ পয়েন্টে। অপর দুই সূচকের মধ্যে শরিয়াহ সূচক ৬ দশমিক ৬৯ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৫০৮ দশমিক ৪০ পয়েন্টে। আর ডিএসই-৩০ সূচক ১৯ দশমিক ৮ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৬৩৫ পয়েন্টে।

আরও পড়ুন : শিক্ষকদের আশ্বাসে নীলক্ষেত থেকে অবরোধ প্রত্যাহার করল শিক্ষার্থীরা

তিনটি সূচকই বাড়ার পরও বিনিয়োগকারীদের বাজার মূলধন বেড়েছে মাত্র ২৩৮ কোটি ২৬ লাখ ৯৯ হাজার ৮০৫ টাকা। সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস রোববার (১৬ জানুয়ারি) লেনদেন শুরুর আগে ডিএসইতে বাজার মূলধন ছিল ৫ লাখ ৬৪ হাজার ৯৯ কোটি ৬৯ লাখ ৫৪ হাজার ২০৬ টাকা। আর সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) লেনদেন শেষে বাজার মূলধন দাঁড়ায় ৫ লাখ ৬৫ হাজার ২৩৫ কোটি ২৩ লাখ ৫৪ হাজার ১১ টাকা।

পুঁজির পাশাপাশি বিদায়ী সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন বেড়েছে ৪১০ কোটি ৭৫ লাখ ২৫ হাজার ৭ টাকা। গত সপ্তাহে লেনদেন হয়েছে ৮ হাজার ২৪৩ কোটি ১৯ লাখ ২৫ হাজার ১৩৫ টাকা। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ৭ হাজার ৮৩২ কোটি ৪৪ লাখ ১২৮ টাকা।অপর পুঁজিবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) ৩৫০টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দাম বেড়েছে ২০১টির, কমেছে ১২৩টির, আর অপরিবর্তিত রয়েছে ২৬টি কোম্পানির।

তাতে এ বাজারের সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ২৭২ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২০ হাজার ৪১৭ পয়েন্টে। সিএসইতে বিদায়ী সপ্তাহে লেনদেন হয়েছে ২৩০ কোটি ২ লাখ ৮৯ হাজার ৭৩৫ টাকার। আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল ১৬২ কোটি ৭১ লাখ ৬৩ হাজার ২৮৬ টাকার। অর্থাৎ লেনদেন বেড়েছে।

ফেসবুকের সাথে কমেন্ট করুন

Share this post

PinIt

Leave a Reply

Your email address will not be published.

scroll to top